Joy Jugantor | online newspaper

নানা আয়োজনে উদযাপিত হচ্ছে ইস্টার সানডে

প্রকাশিত: ২৩:১৩, ৯ এপ্রিল ২০২৩

নানা আয়োজনে উদযাপিত হচ্ছে ইস্টার সানডে

খ্রিষ্টান ধর্মাবলম্বীদের অন্যতম প্রধান ধর্মীয় উৎসব ইস্টার সানডে রোববার। দিনটিকে খ্রিষ্টধর্মের প্রবর্তক যিশু খ্রিষ্টের পুনরুত্থান দিবস মনে করেন তার অনুসারীরা। যথাযথ মর্যাদা ও ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে দিবসটি উদযাপন করছেন খ্রিষ্টান সম্প্রদায়ের অনুসারীরা।

খ্রিষ্ট ধর্মবিশ্বাস মতে, ইস্টার সানডে অর্থাৎ এই দিনে ঈশ্বরপুত্র যিশু খ্রিষ্ট মৃত্যুকে জয় করে পুনরুত্থিত হয়ে তাদের পাপ থেকে মুক্ত করেছিলেন। অনুসারীরা মনে করেন, পুণ্য শুক্রবার বা গুড ফ্রাইডেতে বিপৎগামী ইহুদি শাসকগোষ্ঠী তাদের কুসংস্কারাচ্ছন্ন শাসনব্যবস্থা ধরে রাখতে যিশু খ্রিষ্টকে অন্যায়ভাবে ক্রুশবিদ্ধ করে হত্যা করে। মৃত্যুর তৃতীয় দিবস রোববার তিনি মৃত্যু থেকে জেগে ওঠেন বা পুনরুত্থান করেন। যিশু খ্রিষ্টের পুনরুত্থানের এই রোববারকেই ইস্টার সানডে মানেন তার অনুসারীরা।

খ্রিষ্টান ধর্মমতে, দিনটি এই ধর্মাবলম্বীদের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ও সংবেদনশীল দিন। এই সম্প্রদায়ের জন্য আনন্দের দিন। ৪০ দিনের প্রায়শ্চিত্তকাল বা রোজা শেষে ইস্টার সানডে তাদের জন্য বয়ে আনে আনন্দের বার্তা।

দেশজুড়ে নানা কর্মসূচিতে উদযাপিত হচ্ছে ইস্টার সানডে। সূর্যোদয়ের সময় রাজধানীর মানিক মিয়া অ্যাভিনিউয়ের টিঅ্যান্ডটি মাঠে অনুষ্ঠিত হয় বিশেষ প্রার্থনা। সেখানে প্রার্থনা সংগীতের পাশাপাশি যিশু খ্রিষ্টের উদ্দেশে বাইবেল পাঠ করা হয়।

এ ছাড়া রাজধানীর মিরপুর-১০ নম্বর গোল চত্বরের ব্যাপ্টিস্ট চার্চ সংঘ ও ঢাকা ওয়াইএমসিএর সামনের সড়কে ভোরে বিশেষ প্রাতঃকালীন উপাসনার আয়োজন করে মিরপুর আন্তমান্ডলিক ঐক্য ও সহভাগিতা। কাকরাইল, তেজগাঁওয়ের ব্যাপ্টিস্ট চার্চ মিশনসহ দেশের সব চার্চেও বিশেষ প্রার্থনা অনুষ্ঠিত হয়।

ইস্টার সানডে উপলক্ষে চার্চগুলোকে সাজিয়ে তোলা হয়েছে বর্ণাঢ্যভাবে।