Joy Jugantor | online newspaper

মুখে নিমপাতা, নিথর দেহ ঝুলছিল গাছে

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ০৪:২৭, ২ জুন ২০২৩

মুখে নিমপাতা, নিথর দেহ ঝুলছিল গাছে

বগুড়ার সদরে গাছের সঙ্গে বেঁধে রাখা গামছায় ঝুলন্ত অবস্থায় আবেদীন শেখ নামে এক কৃষকের মরদেহ করেছে পুলিশ। উপজেলার নামুজা ইউনিয়নের শাহপাড়া গ্রামে ভুট্টা ক্ষেতের পাশের নিমগাছ থেকে মরদেহটি উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় পুলিশ একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করেছে।

৬০ বছরের আবেদীন ওই গ্রামের মৃত কছিম উদ্দিনের ছেলে। তিনি আগের দিন বুধবার বিকেল থেকে নিখোঁজ ছিলেন। পরিবারের সদস্যরা তাকে রাতভর খোঁজাখুঁজি করে। পরে ভোরে গ্রামবাসী শাহপাড়া নাগর নদীর ধারে এক ভূট্টার ক্ষেতে আবেদীনের মরদেহ দেখতে পায়।

আবেদীনের ছেলে মো. রানা জানান, ‘বুধবার বিকেলে বাবা ওষুধ কিনতে বাড়ি থেকে বের হয়েছিলেন। তারপর থেকে তাকে আর পাওয়া যায়নি।’

নিহতের মেয়ে রুনা খাতুন বলেন, রাতে মায়ের কাছে থেকে ফোনে শুনতে পায় বাবার নিখোঁজ হওয়ার কথা। সকালে শ^শুর বাড়ি থেকে বাবার বাড়ি যাওয়ার পথে ভূট্টার ক্ষেতে বাবার মরদেহ পাওয়ার খবর পাই। পরে ঘটনাস্থলে গেলে দেখি বাবার মরদেহ গাছে ঝুলছে।

স্থানীয় সূত্র জানায়, এর আগে গত ১০ মে রাতে একই এলাকায় গরু ব্যবসায়ী আব্দুর রাজ্জাককে কুপিয়ে হত্যার ঘটনা ঘটে। ওই সময় পরিবার তার কাছে থাকা আড়াইলাখ টাকা ছিনতাইয়ের দাবি করেছিল। আব্দুর রাজ্জাক হত্যার রহস্য এখনও উদঘাটন করতে পারেনি পুলিশ। নিহত আবেদীন ও আব্দুর রাজ্জাক সম্পর্কে প্রতিবেশি।

এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন বগুড়া সদর থানার এসআই রাসেল আহমেদ। তিনি জানান, বৃহস্পতিবার দুপুরে শাহপাড়া গ্রামের ভুট্টোর ক্ষেতে স্থানীয়রা নিমগাছের সাথে আবেদীনের ঝুলন্ত মরদেহ দেখতে পেয়ে পুলিশকে খবর দেয়। ঘটনাস্থলে গিয়ে গাছের সাথে গামছা দিয়ে গলায় পেঁচানো আবেদীনের মরদেহ উদ্ধার হয়। এসময় তার মুখে নিম পাতা দেওয়া ছিল।

এসআই রাসেল বলেন, সুরতহালে মরদেহে কোনো আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়নি। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে তিনি আত্মহত্যা করেছেন। তবে ময়নাতদন্তে বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া যাবে। এ জন্য মরদেহ শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। আর এ ঘটনায় একটি অপমৃত্যু মামলা করেছে পুলিশ।

বগুড়া সদর থানা পুলিশের পরিদর্শক (তদন্ত) আব্দুর রউফ আরও জানান, আবেদীন আত্মহত্যা করেছেন নাকি হত্যার শিকার হয়েছেন তা এখনও নিশ্চিত নয়। তার শরীরের কোনো আঘাতের চিহ্ন নেই। আবেদীন ও আব্দুর রাজ্জাক সম্পর্কে প্রতিবেশি। আগের ঘটনার সাথে এর সর্ম্পৃক্ততাও খতিয়ে দেখার হচ্ছে।