Joy Jugantor | online newspaper

বগুড়া ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল ও  কলেজের ক্রীড়া প্রতিযোগীতা

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ২২:০১, ২৫ জানুয়ারি ২০২৩

বগুড়া ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল ও  কলেজের ক্রীড়া প্রতিযোগীতা

বুধবার দুপুর থেকে বগুড়া সেনানিবাস

বর্ণিল সাজসজ্জায় প্রাণবন্ত নানা আয়োজনে অনুষ্ঠিত হয়েছে বগুড়া ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল ও কলেজের  বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠান। বুধবার দুপুর থেকে বগুড়া সেনানিবাসস্থ প্রতিষ্ঠানের মাঠে শিক্ষার্থীদের নানা মনোমুগ্ধকর ডিসপ্লে, সুসজ্জিত মার্চ পাস্ট, চূড়ান্ত ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণ ও পুরস্কার বিতরণের আয়োজন মুগ্ধ করেছে সকলকে।

প্রধান অতিথি হিসেবে বেলুন ও ফেস্টুন উড়িয়ে দিনব্যাপী অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন ১১ পদাাতিক ডিভিশনের জিওসি ও বগুড়া এরিয়া কমান্ডার মেজর জেনারেল মোঃ খালেদ আল-মামুন, পিবিজিএম, এনডিসি, পিএসসি। প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি শিক্ষার্থীদের যোগ্য ও মানবিক মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে ধরাবাঁধা পড়াশোনার বাইরে সহশিক্ষা কার্যক্রমের উপর গুরুত্বারোপ করেন। এছাড়াও প্রতিষ্ঠানটির শিক্ষাগত দক্ষতা ও উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখা এবং উত্তরোত্তর সমৃদ্ধির বিষয়ে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন বগুড়া ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল ও কলেজের অধ্যক্ষ কর্নেল তুহিন মোহাম্মদ মাসুদ। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন নাহিদ শারমিন। উদ্বোধনী পর্ব শেষে প্রতিষ্ঠানটির স্কাউটস্ ও গার্লস ইন গাইড দল, প্রতিষ্ঠানের ৪টি হাউজের পৃথক পৃথক দলসহ বাদ্যের তালে তালে শিক্ষার্থীদের সুশৃঙ্খল মার্চ পাস্ট অনুষ্ঠিত হয় যেখান শিক্ষার্থীদের সালাম গ্রহণ করেন জিওসি খালেদ আল-মামুন।

পরবর্তীতে শিক্ষার্থীদের পর্যায়ক্রমে ৫০ মিটার চকলেট দৌড়, যেমন খুশি তেমন সাজো, ১০০ মিটার দৌড় প্রতিযোগিতা, মেয়েদের ৩০ মিটার ভারসাম্য দৌড় এবং স্কুল শাখা ছেলেদের যোগাযোগ দৌড় প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়।

অনুষ্ঠানে এবছর সকলকে মুগ্ধ করেছে শিক্ষার্থীদের তায়কোয়ান্দো ও ডাম্বেল পিটির বিভিন্ন কৌশল প্রদর্শন। আত্মরক্ষার্থে ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল ও কলেজের শিক্ষার্থীদের তায়কোয়ান্দোতে যে দক্ষতা রয়েছে তার প্রদর্শনী সকলকেই আনন্দিত করেছে। এছাড়াও বার্ষিক এই ক্রীড়া প্রতিযোগিতাকে ঘিরে শিক্ষার্থীদের কয়েক ধাপে করা মনোমুগ্ধকর ডিসপ্লে নজর কেড়েছে মাঠের চারিদিকে বসা হাজারো দর্শকের। প্রাচীন সভ্যতার নানা জীবন্ত প্রতিচ্ছবি ফুটিয়ে তুলেছিল শির্ক্ষাথীরা তাদের অভিনয় ও সাজসজ্জায়।

শুধু তাই নয় শিক্ষার্থীরা ডিসপ্লের মাধ্যমেই তুলে ধরেছিল ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলনের খন্ডচিত্র, ১৯৭১ সালের ৭ই মার্চ রেসকোর্স ময়দানে দেয়া জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ভাষণের চিত্র, মহান মুক্তিযুদ্ধের বিভিন্ন স্মরণীয় চিত্রসহ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বাংলাদেশে আগমনের সেই ঐতিহাসিক মূহুর্তও। বাংলার সংস্কৃতির অন্যতম অংশ আদিবাসীদের নানা নাচ-গান প্রদর্শনসহ দেশাত্ববোধক গানেও শিক্ষার্থীরা নেচে গেয়ে সকলকে মুগ্ধ করে যাতে উপস্থিত সকলেই মুহুমুহু কড়তালিতে উৎসাহ আর ধন্যবাদ জানান শিক্ষার্থীদের। 

প্রতিযোগিতায় এবছর প্রতিষ্ঠানের চারটি হাউজের মধ্যে ১৯০ নম্বর পেয়ে শেরে বাংলা হাউজ চ্যাম্পিয়ন হয় এবং রানার্সআপ হয়েছে নজরুল হাউজ। চমৎকার এই আয়োজনে সামরিক ও অসামরিক কর্মকর্তাগণ, শিক্ষক-শিক্ষিকাবৃন্দ,অভিভাবকবৃন্দ, গণমাধ্যমব্যক্তিবর্গসহ শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।