Joy Jugantor | online newspaper

কবরস্থান দখল করে ঘর নির্মাণ, গ্রামবাসীর ক্ষোভ

ডেস্ক রিপোর্ট

প্রকাশিত: ১৯:১৫, ২০ আগস্ট ২০২২

কবরস্থান দখল করে ঘর নির্মাণ, গ্রামবাসীর ক্ষোভ

ছবি সংগৃহীত

কক্সবাজার পৌর শহরের আদর্শগ্রামে কবরস্থান দখল করে কবরের ওপর ঘর নির্মাণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় গ্রামবাসীর মধ্যে ক্ষোভ দেখা দিয়েছে। 

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, কক্সবাজার শহরের আদর্শগ্রামের ওই জমি খাস খতিয়ানে এলাকার মুসলিম জনসাধারণের জন্য কবরস্থান হিসেবে রেকর্ড হয়েছিল। এরপর থেকে এলাকার লোকজন মারা গেলে ওই স্থানে কবর দেওয়া হয়। কিন্তু সেই কবরস্থানটি দখল করে একই এলাকার মোহাম্মদ রওশনের ছেলে আবদুর রহিম, সাইদুর রহমান, মোহাম্মদ করিম, ওছিউর রহমান ও ফাতেমা ঘর নির্মাণ করেছেন। কবরস্থানটি দখলমুক্ত করতে ওই এলাকার পক্ষে সমাজ পরিচলনা কমিটির সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন  উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) বরাবর লিখিত অভিযোগ করেছেন।

আদর্শ গ্রামের বাসিন্দা বোরহান বলেন, আমরা ছোটবেলা থেকে দেখে আসছি এই কবরস্থানে লোকজন মারা গেলে কবর দেওয়া হয়। কিন্তু একটি অসাধু ভূমিদস্যু চক্র এটি দখল করে ঘর নির্মাণের চেষ্টা করছে।

আদর্শগ্রাম সমাজ পরিচালনা কমিটির সভাপতি নাছির উদ্দিন ও সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন বলেন, ১৯৮৮ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় আদর্শগ্রাম। সেই থেকে দক্ষিণ আদর্শগ্রাম, চন্দ্রিমা, ৫১ একরসহ আশপাশের এলাকার মানুষ মারা গেলে আদর্শগ্রাম কবরস্থানে দাফন করা হয়। কিন্তু সম্প্রতি একটি ভূমিদস্যু চক্রের ইন্ধনে মোহাম্মদ রওশনের ছেলে আবদুর রহিম, সাইদুর রহমান, মোহাম্মদ করিম, ওছিউর রহমান ও ফাতেমা এক জোট হয়ে রাতের আঁধারে কবরস্থানের জমি দখল করে ঘর নির্মাণ করেন। তাদের একাধিকবার নিষেধ করারও পর তারা কারও কথা শোনেনি। 

সর্বশেষ শুক্রবার জুমার নামাজ শেষে সমাজ কমিটির নেতৃবৃন্দ ও মুসল্লিরা কবরস্থানের জমিতে ঘর নির্মাণের বিষয় জানতে চাইলে তাদের ওপর ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করা হয়। এ সময় জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯ এ কল দিলে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। 

এ বিষয়ে কক্সবাজার পৌরসভার ১২নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর এমএ মনজুর বলেন, কবরস্থানের জমিতে ঘর নির্মাণ নিয়ে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়। পরে তাদের শান্ত করে বিষয়টি নিয়ে শান্তিপূর্ণ বৈঠকের আহ্বান করা হয়। কবরস্থান দখল করে ঘর নির্মাণ খুবই দুঃখজনক ব্যাপার। 

কক্সবাজার সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ মনিরুল গিয়াস বলেন, জরুরি নম্বরে কল পাওয়ার পর আমাদের একটি টিম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে।