Joy Jugantor | online newspaper

‘পুলিশে চাকরি পেয়েছি, বাবাকে আর কষ্ট করতে হবে না’

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ০৯:৩৯, ২০ মার্চ ২০২৩

আপডেট: ০৯:৪৫, ২০ মার্চ ২০২৩

‘পুলিশে চাকরি পেয়েছি, বাবাকে আর কষ্ট করতে হবে না’

ছবিঃ জয়যুগান্তর।

‘একটা চাকরির খুব দরকার ছিল। কিন্তু এত সহজে ১২০ টাকায় পুলিশের চাকরি পেয়ে যাব, তা কখনো স্বপ্নেও ভাবিনি। তবে মনে মনে আশা ছিল, একদিন পুলিশ হব। চাকরি করে বাবাকে সহযোগিতা করব। সংসার সামলাতে বাবার কষ্ট খুব কাছ থেকে দেখেছি। এখন পুলিশে চাকরি পেয়েছি, বাবাকে আর কষ্ট করতে হবে না।’

বাংলাদেশ পুলিশে কনস্টেবল পদে নিয়োগ পেয়ে এভাবেই উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেন বগুড়ার সোনাতলার বোরহান উদ্দিন (১৯)। বগুড়ায় ট্রেইনি রিক্রুট কনস্টেবল (টিআরসি) নিয়োগ পরীক্ষায় চূড়ান্তভাবে মনোনীত হয়েছেন তিনি। বোরহান  উপজেলার চরপাড়া গ্রামের বর্গাচাষী শফিকুল ইসলামের ছেলে।

বগুড়া জেলা পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, বোরহানসহ আরও ১১০ জন তরুণ ও ১৯ জন তরুণী এই পদে নিয়োগ পেয়েছেন। ট্রেইনি রিক্রুট কনস্টেবল (টিআরসি)-২০২৩ পরীক্ষায় জেলা থেকে মাত্র ১২০ টাকা ফি দিয়ে চার হাজার জনেরও বেশি প্রার্থী অনলাইনে আবেদন করেন। পরে আবেদনকারীদের মধ্য থেকে তিনটি ধাপ পেরিয়ে লিখিত পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেন ১০৯২ জন। চূড়ান্ত ফলাফলে নতুন ১২৯ জন কনস্টেবলকে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে।

গতকাল রোববার রাত ১১ টার দিকে জেলা পুলিশ লাইনসে অডিটোরিয়ামে পুলিশ সুপার সুদীপ কুমার চক্রবর্ত্তী নিয়োগ পরীক্ষায় চূড়ান্ত ফলাফল ঘোষণা করেন। এ সময় নির্বাচিত প্রার্থীদের বগুড়া জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়ে মিষ্টিমুখ করানো হয়।

বোরহান উদ্দিন বলেন, বাবা অন্যের জমিতে ফসল চাষ করে খায়। প্রচণ্ড অভাব অনটনে বড় হয়েছি। ছোট ভাই আছে নবম শ্রেণিতে পড়াশোনা করে। পরিবারের আর কোন কষ্টই থাকবেনা।