Joy Jugantor | online newspaper

‘কাজুবাদাম’ চাষ পরিদর্শনে উপজেলা চেয়ারম্যান ও ইউএনও

শাজাহানপুর (বগুড়া) প্রতিনিধ

প্রকাশিত: ২০:০৩, ৩১ মে ২০২৩

আপডেট: ২০:০৭, ৩১ মে ২০২৩

‘কাজুবাদাম’ চাষ পরিদর্শনে উপজেলা চেয়ারম্যান ও ইউএনও

ছবি: জয়যুগান্তর

বগুড়ার শাজাহানপুর উপজেলায় খোট্টাপাড় গ্রামে পতিত জমিতে সম্ভাবনায় প্রোটিন জাতীয় শস্য ‘কাজুবাদাম’ প্রদর্শনী মাঠ পরিদর্শন করেছেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান প্রভাষক সোহরাব হোসেন ছান্নু ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সাইদা খানম। বুধবার বিকালে প্রদশর্নী ‘কাজুু বাদাম’ বাগান পরিদর্শন করেন।

কৃষি সস্প্রসারণ অধিদপ্তরে কাজুবাদাম ও কফি গবেষণা উন্নয়ন প্রকল্পে মাধ্যমে উপজেলার খোট্টাপাড়া গ্রামের কৃষক মোতাছিম বিল্লাহ'র ৫০ শতক জমিতে প্রদর্শনী কাজুবাদামের চাষ করা হয়েছে। 

উপজেলা কৃষি অফিসে সার্বিক ব্যবস্থাপনায় পরিদর্শনের সময় উপস্থিত ছিলেন ভাইস চেয়ারম্যান ভিপি এম সুলতান আহম্মেদ,মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান হেফাজত আরা মিরা,সহকারী কমিশনার ভূমি শানজিদা মোস্তারী,উপজেলা কৃষি অফিসার আমিনা খাতুন,উপজেলা মৎস্য অফিসার রাশেদ হাসান,উপজেলা প্রাণী সম্পদকর্মকর্তা ডাঃ হোসাইন মোঃ রাকিবুল রহমান,কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা ফারহানা আফরোজ,যুবউন্নয়ন কর্মকর্তা শাহজাহান রেজা,উপজেলা সহকারি প্রোগ্রামার মোস্তাফিজুর রহমান,উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মাহবুবুর রহমান,উপ সহকারী কৃষি অফিসার আখতার রওজেয়ারা রোজী, সহ কৃষি কর্মকর্তা, স্থানীয় এলাকাবাসী উপস্থিত ছিলেন।

উপস্থিত কর্মকর্তাগণ বিদেশি জাতের কাজুবাদামের ভালো ফলাফল দেখে এ অঞ্চলে চাষের সম্ভাবনার ব্যাপারে আশাবাদী হয়ে ওঠেন।

কাজুবাদাম চাষী মোতাছিম বিল্লাহ জানান,কাজুবাদাম চাষে আগে কোন ধারণা ছিল না । উপজেলা উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তার অনুপ্রেরণা কাজুবাদাম চাষে আগ্রহী হয়ে ৫০শতক জমিতে কাজু বাদাম চাষ করি মাত্র ১৮ মাসেই প্রায় গাছে ফলন আসছে।আশাকরছি একবছরে ৮০টি গাছে প্রায় ৮০হাজার টাকার বাদাম বিক্রি করতে পারবো ।

উপজেলা কৃষি অফিসার আমিনা খাতুন জানান, পাহাড়ি এলাকার মত সমতলে অঞ্চলেও কাজুবাদাম চাষের জন্য খুবই উপযুক্ত।পতিত জমিতে কাজুবাদাম চাষের আওতায় আনা গেলে বাংলাদেশে কাজুবাদাম শিল্পে ব্যাপক উন্নয়ন ঘটবে।