Joy Jugantor | online newspaper

তাইজুলের ঘূর্ণিতে দিশেহারা পাকিস্তান

ডেস্ক রিপোর্ট

প্রকাশিত: ১৫:১৩, ২৮ নভেম্বর ২০২১

তাইজুলের ঘূর্ণিতে দিশেহারা পাকিস্তান

সংগৃহীত ছবি

প্রথম দুই বলে মেরেছিলেন চার ও ছয়। তৃতীয় বলেও বড় শট খেলতে নেমেছিলেন ডাউন দ্যা উইকেটে। তবে এবারের হাসিটা তাইজুলের। হাসান আলীকে স্ট্যামিং করে নিজের পাঁচ উইকেট পূর্ণ করলেন এই স্পিনার।

টেস্ট ক্রিকেটে এই নিয়ে অষ্টমবারের মতো এক ইনিংসে পাঁচ উইকেট পূর্ণ করলেন এই বাঁহাতি স্পিনার। দলীয় ২২৯ এ সপ্তম উইকেটের পতন পাকিস্তান শিবিরে। প্রথম ইনিংসে এখনো ১০১ রানে পিছিয়ে বাবর আজমদের দল। বাংলাদেশের দরকার আর তিন উইকেট। 

বারবার জীবন পাওয়া আবিদ থামলেন ১৩৩-এ
দুইবার জীবন পেয়েছিলেন। দুইবারই তাইজুল ইসলামকে হতাশ করেছেন বাংলাদেশি ফিল্ডাররা। তাই তৃতীয়বারে আবিদ আলীকে আউট করার দায়িত্বটা নিজের হাতেই তুলে নিলেন এই স্পিনার। পাকিস্তান ব্যাটিং লাইনআপের একপ্রান্ত আগলে ধরা এই ওপেনারকে লেগ বিফোরের ফাঁদে ফেলে ফিরিয়েছেন তাইজুল।

১১৭ তে নাজমুল হোসেন শান্ত, ১৩৩ এ ইয়াসির রাব্বি- দুটো সহজ সুযোগ হাতছাড়া হয়েছিল। সেই ১৩৩-এই থামলেন আবিদ। দলীয় ২১৭ রানে ষষ্ঠ উইকেটের পতন ঘটলো পাকিস্তানের। তাইজুল তুলে নিলেন নিজের চতুর্থ উইকেট। এখনো ১১৩ রানে পিছিয়ে সফরকারীরা। 

রিজওয়ানকে ফেরালেন এবাদত
মধ্যাহ্নভোজ বিরতির পর আবারও সাফল্য টাইগার শিবিরে। নতুন বলে ব্রেকথ্রু এনে দিয়েছেন এবাদত হোসেন। মোহাম্মদ রিজওয়ানকে লেগ বিফোরের ফাঁদে ফেলেছেন এই পেসার। দলীয় ২০৭ রানে পাকিস্তান হারাল নিজেদের পঞ্চম উইকেট। 

৩৮ বলে ৫ রান করে ফিরেছেন রিজওয়ান। এবাদতের অফস্ট্যাম্পের বাইরের বল ইন সুইংয়ে পরাস্ত হন তিনি। আম্পায়ার আঙুল তুললে রিভিউ নেওয়ার প্রয়োজনও মনে করেননি এই উইকেটরক্ষক ব্যাটার। 

প্রথম সেশনে বাংলাদেশের দাপট
তৃতীয় দিনের প্রথম সেশনটা নিজেদের করে নিয়েছে বাংলাদেশ। এই সেশনে ৩১ ওভার বল করে ৫৮ রান খরচায় ৪ উইকেট তুলে নিয়েছে তাইজুল ইসলাম-মেহেদি মিরাজরা। যদিও বা পাকিস্তানের হয়ে একপ্রান্ত আগলে রেখে সেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন আবিদ আলী। ১১৭ রানে জীবন পাওয়া এই ওপেনার টিকে আছেন ১২৭-এ। 

মধ্যাহ্নভোজের বিরতির আগে দুইশ পার করেছে পাকিস্তান। আবিদের সঙ্গী হিসেবে অন্যপ্রান্তে রয়েছেন মোহাম্মদ রিজওয়ান। সকালের সেশনে পাকিস্তানের চার উইকেটের মধ্যে তিনিটিই তাইজুলের, অন্যটি নিয়েছেন মিরাজ। 

তাইজুলের তৃতীয় আঘাত, পাকিস্তান হারাল চতুর্থ উইকেট
দুই পাকিস্তানি ওপেনার যে প্রতিরোধের দূর্গ গড়েছিল দ্বিতীয় দিনে, তা ভেঙে ম্যাচে ফিরেছে বাংলাদেশ। তৃতীয় দিনের প্রথম সেশনে চতুর্থ উইকেট হারাল সফরকারী দল। তাইজুল ইসলামের তৃতীয় শিকার হয়ে সাজঘরে ফিরলেন ফাওয়াদ আলম।

অফস্ট্যাম্পের বাইরের বল টার্ন করে ভেতরে ঢুকলে তা গ্লোভস ছুঁয়ে চলে যায় লিটন দাসের হাতে। সেই ক্যাচ অবশ্য তালুবন্দি করতে ভুল করেননি টাইগার উইকেটরক্ষক। যদিও আম্পায়ার প্রথমে আউট দেননি, তবে রিভিউ নিয়ে সফল বাংলাদেশ। ১৮২ রানে ৪ উইকেট নেই পাকিস্তানের। ক্রিজে আছেন সেঞ্চুরিয়ান আবিদ আলী ও মোহাম্মদ রিজওয়ান। 

বাবরকে বোল্ড করলেন মিরাজ
সকালের সেশনটা বেশ ভালোই যাচ্ছে বাংলাদেশ দলের জন্য। শুরুতেই জোড়া আঘাত হানেন তাইজুল ইসলাম। পরপর দুই বলে ফিরিয়েছেন আবদুল্লাহ শফিক ও আজহার আলীকে। এরপর তৃতীয় দিনের সবথেকে বড় সফলতা এনে দিলেন মেহেদি মিরাজ। প্রতিপক্ষ দলের সবথেকে বড় তারকা ও পাকিস্তান অধিনায়ক বাবর আজমকে ফেরালেন বোল্ড আউট করে। 

৪৬ বলে ১০ রান করে আউট হয়েছেন বাবর। দলীয় ১৬৯ রানে তৃতীয় উইকেট হারাল পাকিস্তান। এর আগে ক্যারিয়ারের চতুর্থ টেস্ট সেঞ্চুরি পূরণ করেন আবিদ আলি। ২০৯ বল খেলে সেঞ্চুরি পেলেন তিনি। চার মেরেছেন নয়টা, ছক্কা দুটি।
 
দ্বিতীয় দিনে করা বিনা উইকেটে ১৪৫ রান নিয়ে খেলতে নেমেছিল পাকিস্তান। দিনের প্রথম বলেই এক রান নিয়ে শফিককে স্ট্রাইক দেন আবিদ আলি। পরপর তিন ডট বলের পর পঞ্চম বলে করতে চেয়েছিলেন স্কয়ার কাট।
 
কিন্তু তার সেই শটটিতে বল ব্যাটে লাগার আগে আঘাত হানে প্যাডে। বাংলাদেশের ফিল্ডারদের জোরালো আবেদনে সাড়া দেন আম্পায়ারও। খালি চোখেই বোঝা যাচ্ছিল, বল আঘাত হানতো স্ট্যাম্পে। তাই আর রিভিউ নেয়নি পাকিস্তান। শফিক ফেরেন ১৬৬ বলে ৫২ রান করে।
তিন নম্বরে নামা আজহার আলীও ফেরেন লেগ বিফোরের ফাঁদে পড়ে। ক্রিজে নেমে প্রথম বলেই তাইজুলের বল প্যাডে লাগে তার। তাতে বাংলাদেশের আবেদনে সাড়া না দিলেও রিভিউ নিয়ে আজহারকে ফেরান মুমিনুল।