Joy Jugantor | online newspaper

আওয়ামী লীগের কমিটিতে বিএনপি জামায়াত ও জাতীয় পার্টি!

ডেস্ক রিপোর্ট

প্রকাশিত: ১৫:৩২, ৩০ নভেম্বর ২০২১

আওয়ামী লীগের কমিটিতে বিএনপি জামায়াত ও জাতীয় পার্টি!

ছবি : সংগৃহীত

পটুয়াখালীর দুমকিতে নব্য হাইব্রিড আর জামায়াত-বিএনপি ও জাতীয় পার্টির সদস্যদের নিয়ে আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। উপজেলার মুরাদিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সদ্য ঘোষিত আহ্বায়ক কমিটিতে তাদের অন্তর্ভুক্তি করা হয়। 

বিতর্কিত ওই কমিটি বাতিলের দাবিতে প্রতিবাদ-বিক্ষোভ সমাবেশ করেছেন আওয়ামী লীগের স্থানীয় তৃণমূলের নেতাকর্মীরা। 

এদিকে অগঠনতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় গঠিত বিতর্কিত কমিটি স্থগিতের দাবি জানিয়েছে উপজেলা আওয়ামী লীগের একাংশ।

সোমবার সন্ধ্যায় উপজেলার বোর্ড অফিসবাজারে মুরাদিয়া ইউনিয়ন আওযামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের পাঁচ শতাধিক নেতাকর্মীরা সদ্যঘোষিত আহবায়ক কমিটি বাতিলের দাবিতে প্রতিবাদ বিক্ষোভ মিছিল বের করে। তারা প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে সমাবেশ করে। সমাবেশে বক্তারা নব্য হাইব্রিড, নৌকাবিরোধী জামায়াত-বিএনপি সমন্বয়ে গঠিত কমিটি বাতিলের আহ্বান জানান।

সেখানে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সৈয়দ জাকির হোসেন, মো. জাকির হোসেন সিকদার, নুরুজ্জামান খান, হাসান সিকদার প্রমুখ। অপরদিকে রাত সাড়ে ৭টায় প্রেসক্লাব, দুমকির হলরুমে আয়োজিত জনাকীর্ণ এক সংবাদ সম্মেলনে মুরাদিয়ার সদ্যঘোষিত বিতর্কিত কমিটি গঠন প্রক্রিয়া অগঠনতান্ত্রিক উল্লেখ করে তা স্থগিতের দাবি করেছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের একাংশের নেতারা।

আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহসভাপতি ও মুরাদিয়ার ইউপি চেয়ারম্যান মো. মিজানুর রহমান সিকদার জানান, কার্যনির্বাহী কমিটির পূর্ব সিদ্ধান্ত ব্যতিরেকে শীর্ষস্থানীয় নেতাদের না জানিয়ে গোপন লেনদেনে বিতর্কিতদের প্রধান্য দিয়ে মুরাদিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের কমিটি করা হয়েছে। অবিলম্বে আর্থিক বাণিজ্যের বিতর্কিত ওই কমিটি স্থগিত করে দীর্ঘদিনের পরীক্ষিত ত্যাগী নেতাকর্মীদের অন্তর্ভুক্ত করে তা পুনর্গঠনের দাবি করেন।

এই সংবাদ সম্মেলনে উপজেলা আওয়ামী লীগের অর্ধশতাধিক নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।

এ বিষয়ে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল কালাম আজাদ বলেন, আওয়ামী লীগ একটি বৃহত্তম রাজনৈতিক সংগঠন, এতে অনেক যোগ্যতা সম্পন্ন নেতা-কর্মী আছেন। সবাইকে তো আর কমিটিতে জায়গা দেওয়া যাবে না। বঞ্চিতদের ক্ষোভ-অসন্তোষ থাকতেই পারে। আর এ আহবায়ক কমিটিতে জামায়াত, বিএনপি, জাতীয় পার্টি বা নৌকা বিরোধী কোনো লোক নেওয়া হয়নি বরং যাদের নেওয়া হয়েছে তারা সবাই আওয়ামী পরিবারের সদস্য। তবে তিনি আর্থিক লেনদেনের অভিযোগ সরাসরি অস্বীকার করেছেন। একপর্যায়ে তিনি আরও বলেন, সংগঠনকে বিতর্কিত করার জন্যই তারা  এ ধরনের অপপ্রচার চালাচ্ছেন।

উল্লেখ্য, সোমবার সকালে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল কালাম আজাদ সাধারণ সম্পাদক শাহজাহান আকন সেলিম যৌথ স্বাক্ষরে সৈয়দ ফজলুল হককে আহ্বায়ক, পাঁচজনকে যুগ্ম আহ্বায়ক করে ৬৯ সদস্যের একটি আহবায়ক কমিটি গঠন করে ফেসবুকে প্রকাশ করেন। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে মুরাদিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ওই বিতর্কিত কমিটি আপলোডের সঙ্গে সঙ্গেই প্রতিবাদের ঝড় ওঠে।