Joy Jugantor | online newspaper

শীতে খেজুরের গুড় খাচ্ছেন! কী হচ্ছে এর ফলে?

ডেস্ক রিপোর্ট

প্রকাশিত: ১৬:৪৮, ২৩ নভেম্বর ২০২১

শীতে খেজুরের গুড় খাচ্ছেন! কী হচ্ছে এর ফলে?

প্রতীকী ছবি।

বাঙালির ঐতিহ্যে শীতকাল আসে অন্যরকম অনুভূতি নিয়ে। সকালে মা-চাচিদের পিঠা পায়েস বানানোর কথা মনে পড়লেই শীত যেন আর কাবু করতে পারে না। আর শীতের পিঠা-পায়েসে খেজুরের গুড় থাকবে না, তা-ই কি হয়? শহুরে যান্ত্রিকতায় পিঠা-পুলি বানানোর ফুসরস হয়তো হয়ে ওঠে না অনেকেরই, কিন্তু খেজুরের গুড় তো সংগ্রহ করাই যায়। একদিন হয়তো এ গুড় দিয়ে বানানো পায়েসটাই আয়েশ করে খাওয়া হলো!

শীতকালে গুড়ের স্বাদ বাঙালির কাছে মধুর সমান। আমাদের দেশে খেজুরের রস থেকে গুড় তৈরি হয়। বছরের শেষে গুড় দিয়ে তৈরি পিঠে, পুলি, পায়েস, মিষ্টি নিয়ে মজে থাকে বাঙালি। গবেষকরা বলছেন গুড়ের উপকারিতা অনেক।
 
হজমে সহায়তা
আপনি যদি প্রতিদিন খাওয়ার পর একটু গুড় খান তাহলে হজম তাড়াতাড়ি হবে। গুড় আমাদের হজমে সাহায্য করা এনজাইমের শক্তিকে বাড়িয়ে দেয়।

আয়রনের ঘাটতি মেটায়
শরীরে আয়রনের অভাব ঘটলে হিমগ্লোবিনের ঘাটতি হয় ফলে নানারকম সমস্যার সৃষ্টি হয়। গুড়ে প্রচুর পরিমাণে আয়রন থাকে। প্রতিদিন অল্প পরিমাণে গুড় খেলে শরীরে আয়রনের ঘাটতি কমতে পারে।

হরমোনের সমতা ঠিক রাখে
প্রিমেনস্ট্রুয়াল সিনড্রোম বা ‌পিএমএস সমস্যায় কমবেশি প্রায় সমস্ত মহিলারা ভোগেন। প্রতিদিন নিয়ম করে অল্প পরিমাণ গুড় খেলে শরীরে হরমোনের সমতা বজায় থাকে। এছাড়া গুড় আমাদের শরীরে হ্যাপি হরমোনের বৃদ্ধি ঘটায় ও হরমোনের সমতা বজায় রাখে।

এনার্জি সরবরাহ করে
আমাদের শরীরে কার্বোহাইডেড জাতীয় খাবার অথাৎ চিনি এনার্জি প্রদান করে। কিন্তু এই এনার্জি অনেক সময় আমাদের শরীরে রক্তে চিনির পরিমাণ বাড়িয়ে কিডনি, চোখ ও রক্তের চাপ বাড়িয়ে দেয়। গুড় খেলে এই সমস্যাটি কম হতে পারে। কারণ গুড় রক্তের সঙ্গে মিশতে কিছুটা সময় লাগে। ফলে রক্তে গ্লুকোজের পরিমাণ হঠাৎ করে বেশি কমে বা বেড়ে যেতে পারে না। ফলে আমাদের শরীরের অন্যান্য অঙ্গগুলো ক্ষতি কম হয়।
 
শরীর গরম রাখে
গুড় আমাদের শরীর গরম রাখতে সাহায্য করে। ফলে সর্দি, কাশি, ভাইরাল ফিবারের হাত থেকে রক্ষা করে ও শরীর গরম রাখে।