Joy Jugantor | online newspaper

স্ট্রোকের পর রোগীর যত্নে করণীয়

ডেস্ক রিপোর্ট

প্রকাশিত: ১২:১৫, ২৭ অক্টোবর ২০২১

স্ট্রোকের পর রোগীর যত্নে করণীয়

প্রতীকী ছবি।

স্ট্রোক মস্তিষ্কের রক্তক্ষরণজনিত ভয়াবহ রোগ। স্ট্রোক হওয়ার কারণে বাংলাদেশে মৃত্যু ও বিকলাঙ্গের হওয়ার হার বাড়ছে আশঙ্কাজনকভাবে। মস্তিষ্কের কোনো অংশে রক্ত চলাচলের ব্যাঘাত ঘটলে বা রক্তক্ষরণ হলে এবং তা ২৪ ঘণ্টা স্থায়ী হলে তাকে স্ট্রোক বলে।

হঠাত্‍ করে কখনো যদি কারো স্ট্রোক হয়ে থাকে তখন পরবর্তী করণীয় সম্পর্কে অনেকেই অবগত থাকেন না বলে ভুল করে বসা অস্বাভাবিক নয়। রোগীকে এক জায়গা থেকে আরেক জায়গায় স্থানান্তরে সঠিক পদ্ধতি অনুসরণ না করা, রোগীর মনোভাব বুঝতে না পারাসহ নানা কারণে নানা জটিলতা তৈরি হতে পারে। বিশেষজ্ঞ চিকিত্‍সকের পরামর্শ অনুসরণ আর সচেতনতা অবলম্বন করলেই এসব জটিলতা সহজে এড়ানো যায়। আসুন জেনে নেই স্ট্রোক হওয়ার পর রোগী যত্নে করণীয় কিছু পদক্ষেপ।
 
‣‣ রোগীর মনোভাব-কারো স্ট্রোক হওয়ার পর সেই রোগীর মস্তিস্ক-মন স্বাভাবিক থাকে না। তাই অস্বাভাবিক আচরণ ও রাগারাগি করতে পারে। এ ক্ষেত্রে বিচলিত না হয়ে রোগীর মনোভাব বুঝে বিশেষজ্ঞ চিকিত্‍সকের পরামর্শ অনুযায়ী চলতে হবে।

‣‣ কম পানি খাওয়া অধিকাংশ রোগীর ক্ষেত্রেই দেখা যায়, পরিমাণমত পানি কিংবা তরল খাবার না খাওয়ার কারণে রোগীর প্রস্রাবের রং পরিবর্তন হয়ে যায়, এমনকি সংক্রমণও হতে পারে। এ ধরনের জটিলতা এড়াতে রোগীকে অবশ্যই পর্যাপ্ত পানি পান করাতে হবে।

‣‣ স্ট্রোকের পর সাধারণত রোগীকে বিছানায় দীর্ঘ সময় শুয়ে থাকতে হয়। এ ক্ষেত্রে দীর্ঘ সময় ধরে এক অবস্থায় শুয়ে থাকলে চাপজনিত ঘা বা বেড সোর, অস্বস্তি, অনুভূতিহীনতা ইত্যাদি দেখা দিতে পারে। এ জন্য রোগীকে অবশ্যই দুই ঘণ্টা পরপর ডানে, বাঁয়ে ও চিত হয়ে শুইয়ে দিতে হবে।

‣‣ এ সময় রোগীর পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা নিশ্চিত করা জরুরি। সম্ভব হলে রোগীকে নিয়মিত গোসল করাতে হবে। গোসল করানো সম্ভব না হলে অবশ্যই পুরো শরীর ভেজা কাপড় দিয়ে মুছে দিতে হবে। অপরিচ্ছন্নতা ও অপরিষ্কার অবস্থা থেকে নতুন রোগের সংক্রমণ হতে পারে। দিনে দুইবার করে হাতে ও পায়ে অলিভওয়েল কিংবা লোশন নিয়ে মালিশ করা যেতে পারে, যাতে ত্বক ভালো থাকবে।