Joy Jugantor | online newspaper

রাশিয়ার মৃত্যুফাঁদে ইউক্রেন

ডেস্ক রির্পোট

প্রকাশিত: ১০:৫২, ২৬ নভেম্বর ২০২২

রাশিয়ার মৃত্যুফাঁদে ইউক্রেন

সংগৃহীত ছবি।

চার দিকে যেন মৃত্যুর ফাঁদ। নেই বিদ্যুৎ, পানি, জ্বালানি, খাদ্য। প্রতিদিনই একটু একটু করে জেঁকে বসছে শীত অথচ ঘর গরম রাখার উপায় নেই।

প্রযুক্তির এই বিশ্বায়নের যুগে এসেও মানুষ দেখছে প্রস্তর যুগের প্রতিচ্ছবি। গত কয়েক মাস থেকেই ইউক্রেনের বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলো টার্গেট করে হামলা করছে রাশিয়া।

অবস্থা এখন এমন দাঁড়িয়েছে যে, বর্তমান যুগে বসেও অতীত স্মরণ করছে ইউক্রেনের মানুষ। রাজধানীর বড় সড়কগুলোতেও টর্চ লাইট জ্বেলে পথ চলছেন বাসিন্দারা।

আর ঘরে-বাইরে-দোকানে মোমবাতি। মস্কোর এ কৌশলকে বিশেষজ্ঞরা তখন থেকেই রাশিয়ার ‘ডেথ ট্রাপ/উইন্টার ট্রাপ’ নামগুলোতে পরিচিত করেছিলেন। যার প্রকৃত চেহারা এখন দেখছে গোটা বিশ্ব। দুর্ভোগ পোহাচ্ছে গোটা ইউক্রেন।

দেশটির ৪০ শতাংশ মানুষ এখন বিদ্যুৎহীন। কিয়েভের সুউচ্চ বিল্ডিংগুলোয় চলছে না লিফট। ঘোর অন্ধকারে এদের মনে হয় কোনো মৃত্যুফাঁদ। মোবাইল ফোনে চার্জ দেওয়ার সুযোগ নেই।

প্রিয়জনের সঙ্গে যোগাযোগ অক্ষুণ্ন রাখতে কিংবা খানিকটা উষ্ণ হতে মানুষ জড়ো হচ্ছে সাহায্য কেন্দ্রে। শুধু রাজধানীতেই পানি ও বিদ্যুতের জন্য হাহাকার করছে লাখ লাখ মানুষ।

লভিভ, খেরসন, মারিউপোলসহ দেশটির সব বড় শহরেই একই অবস্থা। মঙ্গলবার রাতভর ৭০টি ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্রের আঘাতে কিয়েভের পানির লাইনগুলো বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। বিদ্যুৎ গ্রিড মারাত্মভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। গত দুদিন ধরেই এই সংকট চলছে কিয়েভে। ৩০ লাখ মানুষের শহরটির অর্ধেক মানুষই এখন অন্ধকারে। শুক্রবারও শহরের প্রায় সবখানেই পানির জন্য দীর্ঘ লাইনের দৃশ্য দেখা গেছে । প্লাস্টিকের বোতল হাতে ছুটছে পানির সন্ধানে।

২৬ তলা একটি হাইরাইজ বিল্ডিংয়ে শুধু আধা ঘণ্টা বিদ্যুৎ ছিল বলে জানান আনাসথেসিয়া পাইরোজেঙ্কো নামের এক নারী। জানান, নিরাপত্তা ঝুঁকিতে তিনি এবং তার স্বামী পালিয়ে যান ফ্লাট ছেড়ে। বলেন, ‘মনে হচ্ছে আমরা প্রস্তর যুগে আছি।’ কিয়েভের অনেক বাসিন্দাই খাবারের বাক্স, লাইট, পাওয়ার ব্যাংক নিয়ে লিফটে ওঠেন।

দীর্ঘ সময় লিফটে আটকে থাকলে বেঁচে ফেরার জন্য। অনেকে আবার সেগুলো লিফটেই রেখে যান-বাকিদের কথা ভেবে। ইউক্রেনের রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন গ্রিড অপারেটর ‘ইউক্রেনারগো’র তথ্যানুসারে, সারা দেশে কমপক্ষে ১৫টি প্রধান বিদ্যুৎকেন্দ্রের ক্ষতির কারণে ৪০ শতাংশ ইউক্রেনীয়রা সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছে।

ব্যাহত হচ্ছে চিকিৎসা কাজও। দন্ত চিকিৎসক ভিক্টর তুরাকেভিচ বলেন, তিনি তার রোগীদের অ্যাপয়েন্টমেন্ট অনির্দিষ্ট সময়ের জন্য স্থগিত করতে বাধ্য হয়েছেন।

কারণ বিদ্যুৎ ছাড়া তার কেন্দ্রীয় কিয়েভ ক্লিনিক এমনকি দিনের বেলাও কাজ করতে পারে না। তবে, কিয়েভের বেশির ভাগ হাসপাতাল ইতোমধ্যে জেনারেটর পেয়েছে।

শুক্রবার কিয়েভের মেয়র ভিটালি ক্লিটসকো জানান, ‘সবচেয়ে খারাপ পরিস্থিতির মধ্যে আমরা আছি। যদি বিদ্যুৎ, ব্ল্যাকআউট, পানি, উষ্ণায়ন ব্যবস্থা, পরিষেবা এবং যোগাযোগ না থাকে তবে আমাদের প্রস্তুত থাকতে হবে। ইউক্রেনারগো একটি বিবৃতিতে জানায়, হাজার হাজার কিলোমিটারের প্রধান হাইভোল্টেজ লাইনটি কাজ করছে না।

যার কারণে সমগ্র দেশ প্রভাবিত হচ্ছে। তারা একটি ছবি প্রকাশ করেছে। যেখানে দেখা যায় একটি ট্রান্সফরমার স্টেশনে হামলার ফলে চার লাখ মানুষ বিদ্যুহীন হয়েছে।

প্রতিবেদন অনুসারে বিদ্যুৎপদ্ধতিতে এমন ডজনখানেক ট্রান্সফরমার ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে, যা দ্রুত পুনরুদ্ধার করাও সম্ভব নয়। প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি গত সপ্তাহের হামলার পর বলেছিলেন, ১০ মিলিয়নেরও বেশি ইউক্রেনীয় বিদ্যুৎবিহীন ছিল। কিন্তু রোববার তিনি বলেন, কিছু এলাকায় উন্নতি হয়েছে।

৩ মিলিয়ন মানুষের শহরে ৫২৮টি জরুরি হিটিং পয়েন্টের ব্যবস্থা করা হয়েছে। বাসিন্দারা সেখানে নিজেদের গরম করাসহ চা পান, ফোন চার্জসহ যেকোনো প্রয়োজনীয় সহায়তা পেতে সক্ষম হবেন।

এসব ‘অপরাজেয় কেন্দ্রে’ সাহায্য নিতে আসা এক নারী জানিয়েছেন, তিনি দুদিন খাবার ও বিদ্যুৎ ছাড়া ছিলেন। ৬০টির বেশি শিশু এখানে খাবারের জন্য অপেক্ষা করছে। বিদ্যুৎ পুনরুদ্ধারের আগ পর্যন্ত তারা কিছুই করতে পারছে