Joy Jugantor | online newspaper

দুবছর বিরতির পর ফের উৎসবে মেতে উঠলো বানররা

ডেস্ক রিপোর্ট

প্রকাশিত: ০৬:৫৫, ২৮ নভেম্বর ২০২১

দুবছর বিরতির পর ফের উৎসবে মেতে উঠলো বানররা

সংগৃহীত ছবি

বানরদের উৎসব! পড়তে অবাক লাগলেও এমন উৎসব আসলেই আয়োজন করা হয়। নির্দিষ্ট একটি দিনে আনন্দে মেতে ওঠে বানররা। 

দুবছর বিরতির পর ফের সেই উৎসবে মেতে উঠলো থাইল্যান্ডের বানররা। সেখানে প্রতিবছর এ উৎসবের আয়োজন করা হলেও গত দুবছর মহামারির কারণে তা হয়নি। 
 
তুর্কি সম্প্রচার মাধ্যম টিআরটি ওয়ার্ল্ডের খবর অনুযায়ী, রোববার (২৮ নভেম্বর) থাইল্যান্ডের কেন্দ্রীয় অঞ্চল লোপবুরিতে দুই টন (২০০০ কেজি) ফল এবং সবজি দিয়ে ঐতিহ্যবাহী এ উৎসব পালিত হয়েছে। 

The feast is an annual tradition for locals to thank the monkeys for doing their part in drawing in tourists to Lopburi, which is sometimes known as

দুবছর অপেক্ষার পর শত শত ম্যাকাউ বা লম্বা লেজের বানর মেতে ওঠে সে উৎসবে। মানুষের ঘাড়ে উঠে ফলমূলের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়তে দেখা গেছে তাদের।

৩০টি বানর উৎসবের আয়োজক ইয়ংইয়ুথ কিটওয়াটানাউসন্ট বলেন, ‘আজকের প্রধান মেন্যু ডুরিয়ান। কারণ এটি সবচেয়ে দামী। আর লোপবুরির বানররা দামী জিনিসই বেশি পছন্দ করে।

Thousands of local Macaques are fed with tables of fruits and vegetables during the Monkey Festival.

লোপবুরিকে বানরদের প্রদেশ বলেও ডাকা হয়। বানরদের এই খাবার খাওয়ানোর ঐতিহ্যবাহী উৎসবে চলতি বছর খরচ করা হয়েছে ৩০০০ ডলার বা তিন লাখ টাকা প্রায়। মূলত পর্যটকদের আকৃষ্ট করতেই ফি বছর আয়োজন করা হয় এই উৎসবের।

চলতি বছর এ উৎসবের প্রতিপাদ্য হলো, ‘হুইলচেয়ার মানকিজ’। উৎসবটি থেকে ১০০ জন প্রতিবন্ধীকে হুইলচেয়ার দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ইয়ংইয়ুথ।
 
পর্যটকদের উৎসবে বানরদের সঙ্গে ক্যামেরা নিয়ে খেলা করতে দেখা গেছে। দীর্ঘদিন পর ফের উৎসব হওয়ায় খুশি স্থানীয়রাও। 

Organiser Yongyuth planned to donate 100 wheelchairs to needy people.

থানিডা ফুজিব নামে একজন বলেন, দুবছর পর বানরগুলো সব ধরণের ফলমূল ও সবজি খেতে পারছে দেখে আমি সত্যিই খুব আনন্দিত।

মরোক্কো থেকে আসা একজন পর্যটক বলেন, এই উৎসব আর এত বানর দেখে আমি অভিভূত। পরেরবারও আমি এখানে আসব। এটা অভাবনীয় একটি উদ্যোগ এবং বানরগুলো বেশ নিরীহ।