Joy Jugantor | online newspaper

ঘুমের আগে পানি-অ্যাসপিরিনে কি হৃদরোগের ঝুঁকি কমে

ডেস্ক রিপোর্ট

প্রকাশিত: ১৩:৫৬, ১ আগস্ট ২০২১

ঘুমের আগে পানি-অ্যাসপিরিনে কি হৃদরোগের ঝুঁকি কমে

ছবি সংগৃহীত

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে একটি পোস্টে হৃদরোগের ঝুঁকি এড়াতে প্রতিদিন রাতে ঘুমানোর আগে এক গ্লাস পানি ও অ্যাসপিরিন খাওয়ার পরামর্শ দেয়া হয়েছে। এ পোস্টটি শেয়ার হয়েছে কয়েক লাখ বার।

সুস্বাস্থ্য নিশ্চিতে নিয়মিত পানি পানের পরামর্শ দেন স্বাস্থ্যবিদরা। কিন্তু কোনো সুনির্দিষ্ট সময়ে এ চর্চা স্বাস্থ্যে আলাদা প্রভাব ফেলে, এমন কোনো প্রমাণ মেলেনি বলে জানিয়েছেন ইউনিভার্সিটি অফ অটোয়া হার্ট ইনস্টিটিউটের হৃদরোগ প্রতিরোধ ও পুনর্বাসন বিভাগের সাবেক প্রধান ড. অ্যান্ড্রু পাইপস।

বার্তা সংস্থা এএফপির ফ্যাক্ট চেক প্রতিবেদনে জানানো হয়, হৃদরোগে আক্রান্ত হলে তাৎক্ষণিক প্রাথমিক পথ্য হিসেবে অ্যাসপিরিন চিবিয়ে খাওয়ার পরামর্শ দেয়া হলেও এটা প্রতিদিন খাওয়া উচিত নয় বলে জানিয়েছেন ড. পাইপস। বিশেষ করে হৃদরোগপূর্ব জটিলতায় ভুগছেন না, এমন ব্যক্তিদের জন্য তো একেবারেই নয়।

পাইপস বলেন, ‘দিনে কিংবা রাতে যখনই হোক না কেন, প্রতিদিন অ্যাসপিরিন খাওয়া মোটেই উচিত কাজ নয়। অ্যাসপিরিন খাওয়ার পর দেহ এর প্রভাবমুক্ত হতে সাত থেকে ১০ দিন সময় নেয়। শুনতে ভালো লাগলেও প্রতিদিন অ্যাসপিরিন খাওয়ার কোনো বাস্তব কার্যকারিতা নেই।’

স্বাস্থ্যবিষয়ক পরামর্শ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে আলোচনার জন্য বেশ জনপ্রিয় ইস্যু। এসবের মধ্যে হৃদরোগের ঝুঁকি কমানোর পরামর্শ অন্যতম। বিশেষ করে সহজে ও ন্যূনতম খরচে হৃদরোগের ঝুঁকিমুক্ত থাকার উপায় হিসেবে পানি পান আর অ্যাসপিরিন সেবনকে বেশ গুরুত্বের সঙ্গেই নিয়েছেন অনেক মানুষ।

ফেসবুকে এ সংক্রান্ত পোস্ট ভাইরাল হওয়ার আগে অবশ্য ভ্রান্ত এ ধারণাটি ছড়িয়েছে ইমেইলের মাধ্যমে। এর প্রভাব এতটাই যে কানাডায় বোতলজাত পানি উৎপাদনকারী একটি প্রতিষ্ঠান, যুক্তরাষ্ট্রের একটি বিমা প্রতিষ্ঠানও নিজ গ্রাহকদের প্রতিদিন ঘুমানোর আগে পানি পানের পরামর্শ দিয়েছে।

এ ধরনের যত পোস্ট আছে, সবগুলোতেই যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক অলাভজনক স্বাস্থ্য প্রতিষ্ঠান মায়ো ক্লিনিকের কর্মকর্তা ড. ভিরেন্দ সমার্সের নাম উল্লেখ করা হয়েছে। সূত্র হিসেবে বলা হয়েছে, আমেরিকান কলেজ অফ কার্ডিওলজির জার্নালে ২০০৮ সালের ২৯ জুলাই প্রকাশিত এ সংক্রান্ত একটি গবেষণা প্রতিবেদনের কথা।

বিষয়টির সত্যতা যাচাই করতে গিয়ে দেখা যায়, ওই গবেষণা প্রতিবেদনটির লেখক ড. সমার্স নন। গবেষণায় তার কোনো ভূমিকাও নেই। গবেষণা প্রতিবেদনটিতে হৃদরোগের ঝুঁকি প্রতিরোধে পানি পান বা অ্যাসপিরিন খাওয়ার বিষয়ে কিছু উল্লেখও নেই।

মূলত ঘুমানোর সময় থেমে থেমে শ্বাসপ্রশ্বাসের জটিলতায় ভোগা রোগীদের নিয়ে গবেষণাটি করা হয়েছে। এতে রাতে হৃৎপিণ্ডে হঠাৎ রক্তপ্রবাহ বন্ধ হয়ে যাওয়া বা হার্ট অ্যাটাকের সঙ্গে ঘুমের মধ্যে শ্বাসপ্রশ্বাস বন্ধ হয়ে যাওয়ার সম্ভাব্য যোগসূত্র নিয়ে কথা বলা হয়েছে।

ভুয়া পোস্টের দাবি জোরদারে মায়ো ক্লিনিকের এক চিকিৎসকের নাম ব্যবহার করার বিষয়টি জানতে পেরে এ বিষয়ে সতর্ক করে পরে একটি বিবৃতিও দেয় প্রতিষ্ঠানটি।

এতে বলা হয়, ‘ভুল ও সম্ভবত ক্ষতিকর যে তথ্যটি ইমেইলের মাধ্যমে ছড়ানো হয়েছে, তাতে মায়ো ক্লিনিক বা ড. সমার্সের কোনো সম্পৃক্ততা নেই।’

নির্দিষ্ট সময়ে পানি পানের উপকারিতা আছে?

যুক্তরাষ্ট্রের ওহাইওতে অবস্থিত ক্লিভল্যান্ড ক্লিনিকের কার্ডিওভাস্কুলার সার্জন ড. মার্ক গিলিনভ দিনের নির্দিষ্ট সময়ে পানি পানের উপযোগিতার বিষয়টি পরীক্ষা করেছেন।

কোমল পানীয়ের পরিবর্তে পানি পানের পরামর্শ তার। তিনি লিখেছেন, ‘কখন পানি পানে কী হয়, এ বিষয়ে কোনো তথ্য নেই। তাই এমন কোনো দাবির ওপর নির্ভর করে কোনো সিদ্ধান্ত নেবেন না।’

এ ছাড়া ২০০২ সালে প্রকাশিত এক গবেষণায় বলা হয়, প্রতিদিন পাঁচ গ্লাস বা তার বেশি পানি পান করলে প্রাণঘাতী হৃদরোগের ঝুঁকি কমে। দিনে দুই গ্লাস বা এর কম পানি পান করলে এ ঝুঁকি বেশি।

ওই গবেষণাতেও দিনের বা রাতের কোনো নির্দিষ্ট সময়ে পানি পানের উপযোগিতা নিয়ে কিছু বলা হয়নি।

হৃদরোগে অ্যাসপিরিনের ব্যবহার

হৃদরোগ সংক্রান্ত কোনো জটিলতা অতীতে ছিল বা বর্তমানে আছে, এমন ব্যক্তিদের প্রতিদিন অ্যাসপিরিন খাওয়ার পরামর্শ প্রায়ই দেন চিকিৎসকরা।

কিন্তু তাই বলে চিকিৎসকদের পরামর্শ ছাড়া এমন ব্যক্তিদেরও নিজ বুদ্ধিতে দৈনিক অ্যাসপিরিন খাওয়া উচিত নয় বলেও সতর্ক করেন তারা।

২০১৯ সালের অক্টোবরে ইউনিভার্সিটি অফ অ্যালবার্টার ফ্যাকাল্টি অফ মেডিসিনের প্রকাশ করা এক গবেষণায় বলা হয়, যাদের কখনো এমন কোনো জটিলতা ছিল না বা নেই, তারা প্রতিদিন অ্যাসপিরিন খেলে লাভের চেয়ে ক্ষতিই বেশি।

এ ধরনের রোগীদের প্রতিদিন অ্যাসপিরিন খাওয়া থেকে বিরত থাকার ওপরই জোর দেন চিকিৎসকরা।