Joy Jugantor | online newspaper

ফুসফুসের ৭২ ভাগ সংক্রমিত সোহেল রানার

ডেস্ক রিপোর্ট

প্রকাশিত: ১৬:০৮, ১৬ জানুয়ারি ২০২২

ফুসফুসের ৭২ ভাগ সংক্রমিত সোহেল রানার

সোহেল রানা

অভিনেতা সোহেল রানা গত ২৫ ডিসেম্বর রাতে হাসপাতালে ভর্তি হন। এর আগে তার জ্বর ও কাশি ছিল। পরে করোনার নমুনা পরীক্ষায় শনাক্ত হন তিনি। চারদিনের মাথায় শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে লাইফ সাপোর্টে নেয়া হয় তাকে। তারপর অবস্থার উন্নতি হওয়ায় ২০ দিন পর শুক্রবার (১৪ জানুয়ারি) হাসপাতাল ছেড়ে বাসায় ফিরেন কিংবদন্তী অভিনেতা ও প্রযোজক।

এদিকে শনিবারঅভিনেতার স্ত্রী জিনাত বেগম গণমাধ্যমকে জানান, হাসপাতালে করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় সোহেল রানা পুরোপুরি সুস্থ না হওয়ার পরও ডাক্তারদের পরামর্শে বাসায় ফিরেছেন তিনি।

তিনি জানান, অভিনেতার সর্বশেষ সিটিস্ক্যান রিপোর্ট অনুযায়ী করোনা ভাইরাসের জন্য ফুসফুসের ৭২ ভাগ সংক্রমিত সোহেল রানার। এ জন্য আগামী ছয় মাস পর্যবেক্ষণে রাখার জন্য বলা হয়েছে।

অভিনেতার স্ত্রী জানান, ডাক্তার বলছেন, আপনারা এই রোগী আমাদের হাসপাতালে আর রাইখেন না। তার একদমই ইমিউন সিস্টেম নেই। হাসপাতালের আয়া-ওয়ার্ড বয় থেকে শুরু করে সবার মধ্য বিভিন্ন ব্যাকটেরিয়া রয়েছে। দেখা গেছে, তার মধ্যে আমরাই আবার এটা ছড়িয়ে দেব।

সোহেল রানা

জিনাত বেগম জানান, ডাক্তাররা আরও বলেছেন, সোহেল রানা করোনা থেকে যাও একটু উঠেছেন, মোটামুটি অক্সিজেন ৯১-৯২-৯৩ এর মধ্যে থাকছে। ধীরে ধীরে বাড়ছে। কিন্তু এমন পরিস্থিতিতে তাকে যদি হাসপাতালে রাখা হয় তাহলে করোনায় নয়, অন্য কোনো রোগে ভুগতে হবে তাকে। এমনকী নিউমোনিয়া হতে পারে। তার ইমিউন সিস্টেম একদমই নেই।

তিনি আরও জানান, সোহেল রানাকে বাসায় নেয়ার পর কৃত্রিম উপায়ে অক্সিজেন দেয়া হচ্ছে। অক্সিজেন দেয়ার মেশিনও নিয়েছেন তারা। এ ধরনের রোগীর জন্য প্রাথমিকভাবে প্রয়োজনীয় সবই নিয়েছেন তারা। ডাক্তাররা নিয়মিত ইনসুলিনে ব্লাড সুগার, পালস ইত্যাদি চেক করার কথা বলেছেন। অনেক ধরনের ওষুধ দেয়া হয়েছে। এসব নিয়মিত খাওয়ানোর জন্যও বলা হয়েছে। সেই সঙ্গে ভালো ভালো খাবার খাওয়ানোর জন্যও বলা হয়েছে তাকে।

সোহেল রানা বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের প্রথম পূর্ণাঙ্গ চলচ্চিত্র ‘ওরা ১১ জন’ ছবির প্রযোজক হিসেবে চলচ্চিত্রে আত্মপ্রকাশ করেন। এরপর ১৯৭৩ সালে কাজী আনোয়ার হোসেনের মাসুদ রানার গল্প অবলম্বনে ‘মাসুদ রানা’ ছবিতে নায়ক হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেন তিনি।

Add