Joy Jugantor | online newspaper

‘স্বতন্ত্র’ মোড়কে বিএনপি, খালেদা জিয়ার মুক্তি ও চিকিৎসার দাবিতে নেই গুরুত্ব

বদলগাছী(নওগাঁ) প্রতিনিধি 

প্রকাশিত: ১৮:০৯, ২৪ নভেম্বর ২০২১

আপডেট: ১৮:০৯, ২৪ নভেম্বর ২০২১

‘স্বতন্ত্র’ মোড়কে বিএনপি, খালেদা জিয়ার মুক্তি ও চিকিৎসার দাবিতে নেই গুরুত্ব

আগামী ২৮ নভেম্বর নওগাঁর বদলগাছীতে ইউপি নির্বাচন। এই নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেনি বাংলাদেশের অন্যতম রাজনৈতিক দল বিএনপি। তবে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে নির্বাচনের মাঠ গরম করছেন উপজেলা বিএনপির নেতারা। ইউপি নির্বাচনের কারণে গুরুত্বহীন হয়ে পড়েছে অসুস্থ খালেদা জিয়াকে মুক্তি ও বিদেশে সু-চিকিৎসার দাবিতে আন্দোলন। দলের প্রধানকে মুক্ত করার আন্দোলনে এই উপজেলার রাজপথ যেন নেতা শূন্য।

দল নির্বাচনে অংশগ্রহণ না করলেও উপজেলার আটটি ইউনিয়নেই নেতৃস্থানীয়রা স্বতন্ত্রভাবে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করার সিদ্ধান্ত নেন। অথচ দলীয় প্রধানের মুক্তির আন্দোলন নিয়ে তাদের কোনো কার্যক্রম দেখেনি এ উপজেলার রাজপথ।

জানা গেছে, উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক জাকির হোসেন চৌধুরী আধাইপুর ইউপি থেকে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করছেন। একই ইউপিতে গত ইউপি নির্বাচনের ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী আলহাজ¦ ওসমান আলী মণ্ডলও রয়েছেন স্বতন্ত্র লেবাসে। উপজেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক সাইদুর রহমান কেটু নির্বাচন করছেন বিলাশবাড়ী ইউপি থেকে। এখানেও গত ইউপি নির্বাচনের ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী সাজ্জাদ হোসেন রয়েছেন স্বতন্ত্র হিসেবে। বদলগাছী উপজেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটির সদস্য ও গত ইউপি নির্বাচনে ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী আব্দুল হাদি চৌধুরী টিপু স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে ভোট করছেন। বদলগাছী সদর ইউপিতে স্বতন্ত্র প্রার্থ হিসেবে রয়েছেন বিএনপির আহ্বায়ক কমিটির সদস্য এম এম গফুর। মিঠাপুর ইউপিতে রয়েছেন সাবেক উপজেলা যুবদলের সভাপতি ও উপজেলা যুবদলের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য আব্দুর রাজ্জাক। কোলা ইউপিতে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে রয়েছেন বিএনপি নেতা জাফর ইকবাল (তাজুল) ও বিএনপি নেতা ফজলে রাব্বী ফারুকী। বালুভরা ইউপিতে বিএনপি নেতা আল এমরান হোসেন এবং পাহাড়পুর ইউপিতে বিএনপি নেতা জিল্লুর রহমান স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে দলীয় সিদ্ধান্তের বাহিরে গিয়ে নির্বাচন করছেন। 

এ বিষয়ে উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক ও আধাইপুর ইউপির স্বতন্ত্র প্রার্থী জাকির হোসেন চৌধুরী বলেন, যদিও দল নির্বাচনে যায়নি, তবে নিজ এলাকার নেতাকর্মীদের অবস্থান ধরে রাখার জন্য আমরা নির্বাচন করছি। দলীয় প্রধানের মুক্তির আন্দোলন বিষয়ে তিনি বলেন, নির্বাচনের কারণে আন্দোলন কর্মসূচি পালন করা হয়নি। তবে নির্বাচনের পর থেকে কেন্দ্রীয় নির্দেশনা অনুযায়ী সকল কর্মসূচি পালন করা হবে। 

এ বিষয়ে নওগাঁ জেলা বিএনপির আহ্বায়ক মাস্টার হাফিজার রহমান বলেন, যারা ইউপি নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেছেন, তারা সেটা নিজ দায়িত্বে করছেন। নেত্রীর মুক্তির আন্দোলনে অংশগ্রহণ না করার খবর আমি পেয়েছি। এ ব্যাপারে উপজেলার দায়িত্বে থাকা নেতাদের কাছে জবাবদিহি চাওয়া হবে।