Joy Jugantor | online newspaper

বগুড়ায় একদিনে সাড়ে ৬ হাজার জন পেলেন করোনা টিকা

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ১৮:৫২, ২৩ নভেম্বর ২০২১

বগুড়ায় একদিনে সাড়ে ৬ হাজার জন পেলেন করোনা টিকা

ফাইল ছবি।

বগুড়ায় সদর উপজেলার নামুজা ইউনিয়নে স্যাটেলাইট কার্যক্রমের আওতায় একদিনে ৬ হাজার ৭৫০ জন করোনার প্রথম ডোজ (সিনোফার্ম) টিকা পেয়েছেন। মঙ্গলবার (২৩ নভেম্বর) সকাল ৯ টা থেকে শুরু হয়ে সন্ধ্যা পর্যন্ত ইউনিয়নের টেংরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে টিকাদান কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়। 

এই স্যাটেলাইট কার্যক্রম পরিচালনা করে সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা দপ্তর।পাশাপাশি কর্মসূচির সার্বিক ব্যবস্থাপনা করে নামুজা ইউনিয়ন পরিষদ। কর্মসূচিতে নামুজাসহ আশপাশের ইউনিয়নের বাসিন্দারাও করোনা টিকা নিতে আসেন। এসময় নারী ও পুরুষদের দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে টিকা নিতে দেখা গেছে।

সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা সূত্র জানায়, দীর্ঘদিন ধরে অনেকে রেজিস্ট্র্রেশন করেও করোনা টিকা নিতে পারছিলেন না। আবার অনেকে শহরে গিয়ে টিকা নিতে আগ্রহী ছিলেন না। এ জন্য নামুজা ইউনিয়ন পরিষদের ব্যবস্থাপনায় স্যাটেলাইট গ্রোগামের আওতায় গণটিকার কার্যক্রমটি পরিচালনা করা হয়।কর্মসূচিতে সারাদিনে ৫ হাজার মানুষকে প্রথম ডোজ টিকা দেওয়ার লক্ষ্য ছিল। তবে বিকেল গড়াতেই তা ফুরিয়ে যায়। পরে অতিরিক্ত আরও ১ হাজার ৭৫০ ডোজ টিকা এনে উপস্থিত মানুষদের দেওয়া হয়। 

উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগ সূত্র আরও জানায়, ১০টি বুথের মাধ্যমে দিনব্যাপী এই কার্যক্রমটি পরিচালনা করা হয়েছে। এতে প্রতি বুথে ২ জন করে স্বাস্থ্য সহকারীসহ ৫০ জন স্বেচ্ছাসেবক দায়িত্ব পালন করেছেন

টিক নিতে আসা লাইলি বেওয়া (৬৪) জানান, আমার পক্ষে শহরে যেয়ে টিকা নেওয়া সম্ভব ছিলোনা। আর এভাবে গ্রামে বসে টিকা পাও তাও ভাবিনি। খুব ভালো লাগছে। সরকারকে ধন্যবাদ। 

গৃহবধু  মনিরা বেগম (৩৫) বলেন, বাড়ির কাছে করোনা টিকা পেলাম ভোগান্তি ছাড়া। এজন্য ভালো লাগছে। আশাকরি আল্লাহ সবাইকে সুস্থ রাখবে।

টিকাদান কার্যক্রমের বিষয়ে নামুজা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রাসেল মামুন বলেন, সারাদিনে কোনরকম বিশৃঙ্খলা ছাড়াই সাধারণ মানুষদের টিকা দেয়া হয়েছে। করোনা টিকা দিতে পেরে আশাপাশের এলাকার সবাই খুব আনন্দিত।

বগুড়া সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. সামির হোসেন মিশু জয়যুগান্তরকে বলেন, দীর্ঘদিন ধরে অনেক মানুষ রেজিস্ট্রেশন করেও টিকা পাচ্ছিলেন না। সেজন্য আমরা এলাকায় প্রচারণা চালিয়ে এ কার্যক্রম হাতে নিয়েছি। ২য় ডোজের সময়ও আজকের টিকাপ্রাপ্তদের একইভাবে দেওয়া হবে।

এর আগে চলতি মাসের ১৬, ২৩ ও ২৬ অক্টোবর গোকুল, নুনগোলা ও এরুলিয়া ইউনিয়নে এবং ৯ নভেম্বর সাবগ্রাম ইউনিয়নে একই ভাবে স্যাটেলাইট কার্যক্রমের আওতায় একদিনে গড়ে প্রায় সাড়ে ১০ হাজার মানুষকে করোনার প্রথম ডোজ টিকা দেওয়া হয়েছে।