Joy Jugantor | online newspaper

পুনর্বাসন কেন্দ্রেই তিন বছরের প্রেম, বিয়েতে হাজার অতিথি

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ২৩:১৯, ১৮ অক্টোবর ২০২১

আপডেট: ২৩:২০, ১৮ অক্টোবর ২০২১

পুনর্বাসন কেন্দ্রেই তিন বছরের প্রেম, বিয়েতে হাজার অতিথি

বর ও কনে।

বগুড়ার টিএমএসএস (ঠেঙ্গামারা মহিলা সবুজ সংঘ) অটিজম ও বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী স্কুল এবং পুনর্বাসন কেন্দ্রে দুজন তরুণ-তরুণীর বিয়ে  দেয়া হয়েছে। এটি ছিল এই প্রতিষ্ঠানের প্রথম কোনো বিয়ের আয়োজন।

বিয়ের বর ২৪ বছর বয়সী ইমদাদুল হক ও কনে ২০ বছর বয়সী সুমনা খাতুন অটিস্টিক (স্নায়বিক বিকাশ সংক্রান্ত রোগ)) তরুণ-তরুণী। এ  দুজনই ওই পুনর্বাসন কেন্দ্রের বাসিন্দা। তাদের দুই পরিবারের সম্মতিতে বিয়ে দেয়া হয়েছে। তিন বছর ধরে তাদের প্রেমের সম্পর্ক ছিল।

সোমবার দুুপুরে বগুড়ার টিএমএসএস অটিজম ও বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী স্কুল এবং পুনর্বাসন কেন্দ্রে গিয়ে দেখা গেছে বর-কনের বরণ মঞ্চে লাল শাড়ি পড়ে বধূর বেশে বসেছিলেন সুমনা। তার পাশেই   লাল পাঞ্জাবি পড়ে বরের সাজে বসে আছেন ইমদাদুল হক। এবং তাদের ঘিরে রয়েছেন উভয় পরিবারের আত্মীয়-স্বজন ও প্রতিষ্ঠানটির আমন্ত্রিত অতিথিরা। দুপুর থেকেই তাদের বিয়ের অনুষ্ঠান শুরু হয়। জমকালো এই বিয়ের আয়োজেন প্রীতিভোজে আমন্ত্রিত ছিলেন ১ হাজারেও বেশি অতিথি। বগুড়ার টিএমএসএস অটিজম ও বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী স্কুল এবং পুনর্বাসন কেন্দ্রে বর-কনের বরণ মঞ্চে লাল শাড়ি পড়ে বধূর বেশে বসেছিলেন সুমনা। তার পাশেই   লাল পাঞ্জাবি পড়ে বরের সাজে বসে ছিলেন ইমদাদুল হক। এবং তাদের ঘিরে রয়েছেন উভয় পরিবারের আত্মীয়-স্বজন ও প্রতিষ্ঠানটির আমন্ত্রিত অতিথিরা।
 
এর আগে রোববার গায়ে হলুদের অনুষ্ঠানও জাঁকজমকভাবে করা হয়। ওই অনুষ্ঠানেও  বর-কনের পরিবারের ২০ জন ছাড়াও ৫০০ অতিথি উপস্থিত ছিলেন বলে জানা গেছে।

জানতে চাইলে পুনর্বাসন কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক সাঈদ যুবায়ের বলেন, ইমদাদ ও সুমনার মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠেছিল। তাদের মধ্যে তিন বছর ধরে প্রেমের সম্পর্ক ছিল। ওই সম্পর্ক  থেকেই এ দুজন বিয়ের সিদ্ধান্ত নেন। দুই পরিবারের সম্মতিতে বিয়ের আয়োজন করা হয়। উৎসবমূখর পরিবেশে তাদের বিয়ে সম্পন্ন হয়েছে। এই বিয়েতে দুই পরিবারের সদস্যসহ হাজারের বেশি অতিথি উপস্থিত ছিলেন।