Joy Jugantor | online newspaper

দরিদ্র পরিবারে জন্ম নিয়েও দমে যায়নি দিপা

 সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি 

প্রকাশিত: ১৬:৪০, ১১ এপ্রিল ২০২১

দরিদ্র পরিবারে জন্ম নিয়েও দমে যায়নি দিপা

দিপা-ফাইল ছবি।

দারিদ্রতা দমিয়ে রাখতে পারেনি দিপা সরকারকে। তার স্বপ্ন পূরণ হয়েছে। এতিম হতদরিদ্র পরিবারের সন্তান দিপা সরকার এ বছর কুমিল্লা মেডিকেল কলেজে পড়ার সুযোগ পেয়েছেন। 

প্রবল ইচ্ছা শক্তি, অদম্য মেধা ও পরিশ্রমের ফলে দরিদ্র পরিবারে জন্ম নিয়েও দমে যায়নি দিপা। পড়ালেখার মাধ্যমে মেধার স্ফূরণ ঘটিয়েছেন। পরিবারের অসীম অভাব অনটনে থেকেও কখনো লেখাপড়ায় পিছপা হননি দিপা। অদম্য এই প্রতিভাকে দমিয়ে রাখতে পারেনি অভাব। 

দিপা ঢাকা ডেন্টাল কলেজ কেন্দ্র থেকে ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নিয়ে ৭১.২৫ নম্বর পেয়েছেন। তার মেধাক্রম ২ হাজার ৩২৯। দিপা কুমিল্লা মেডিকেল কলেজে পড়ার সুযোগ পেয়েছেন। তিনি সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর উপজেলার পোতাজিয়া ইউপির আলোকদিয়ার গ্রামের মৃত আবুল কালাম সরকার ও মৃত শিরিন বেগমের ছোট মেয়ে। তারা দুই ভাই তিন বোন। 

২০১৬ সালে নুকালী বহু পার্শিক উচ্চ বিদ্যালয় থেকে বৃত্তি লাভ করেন। ২০১৮ সালে নুকালী বহু পার্শিক উচ্চ বিদ্যালয় থেকে গোল্ডেন এ প্লাস পেয়ে এসএসসি এবং শাহজাদপুর সরকারি কলেজ থেকে ২০২০ সালে গোল্ডেন এ প্লাস পেয়ে এইচএসসি পাস করেন দিপা। দিপার এমন সাফল্যে আনন্দে ভাসছে পুরো পরিবার আত্মীয়-স্বজন। শুধু পরিবারই নন, দিপার এমন সফলতায় দিপার শিক্ষক সহপাঠী ও গ্রামবাসীরাও খুশি। 

দিপার মামা আলতাফ হোসেন জানান, দিপার যখন ৩ মাস বয়স তখন দিপার মা মারা যায়। তারপর তার বাবা আরেকটা বিয়ে করলে দিপা তখন তার ছোট চাচার কাছে মানুষ হতে থাকে। দিপার বয়স যখন ৫ বছর হয় তখন তার বাবাও মারা যায়। তখন থেকেই শুরু হয় দিপার কষ্টের জীবন। কিন্তু অভাব দিপাকে দমিয়ে রাখতে পারেনি। লেখাপড়ার প্রতি অদম্য আগ্রহ সাফল্য এনে দিয়েছে তাকে। দিপার এমন সাফল্যে সবাই খুশি। 

দিপা জানান, এবার এমবিবিএস পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করে মেডিকেলে পড়ার সুযোগ পেয়েছি। দিপা তার ছোট চাচা বিপুল ও চাচির প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে আরো জানান, বাবা মা হারিয়ে চাচার বাড়ি থেকে লেখাপড়া করলেও কখনো মনোবল হারাইনি। সবার কাছে দোয়া চাই, আমি যেন ভালভাবে মেডিকেলে লেখাপড়া করে মানুষের সেবায় নিয়োজিত থাকতে পারি ও অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়াতে পারি।