Joy Jugantor | online newspaper

ঘূর্ণিঝড় রেমাল তাণ্ডবে দেড় কোটি গ্রাহক বিদ্যুৎহীন

ডেস্ক রিপোর্ট

প্রকাশিত: ১৪:৪২, ২৭ মে ২০২৪

ঘূর্ণিঝড় রেমাল তাণ্ডবে দেড় কোটি গ্রাহক বিদ্যুৎহীন

ঘূর্ণিঝড় রেমাল তাণ্ডবে দেড় কোটি গ্রাহক বিদ্যুৎহীন

প্রবল ঘূর্ণিঝড় ‘রেমাল’ দুর্বল হয়ে স্থল গভীর নিম্নচাপ পরিণত হলেও এর প্রভাবে দমকা হাওয়ার সঙ্গে বৃষ্টি হচ্ছে। এর তাণ্ডবের মধ্যে ক্ষয়ক্ষতি এড়াতে দেশের উপকূলীয় এলাকার এক কোটি ৫৫ লাখ গ্রাহকের সংযোগ বন্ধ রেখেছে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি।

সোমবার ২৭ মে বাংলাদেশ পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড সূত্রে জানা গেছে, অনেক স্থানে বিদ্যুৎবিহীন পরিস্থিতি ১২ ঘণ্টা অতিক্রম করেছে, ঝড় থেমে গেলে সংযোগ ফিরিয়ে দেওয়ার প্রস্তুতি নিয়ে বসে আছেন বিদ্যুৎ কর্মীরা।

রেমালের তাণ্ডবে সারাদেশে এখন পর্যন্ত অন্তত ১০ জনের মৃত্যুর সংবাদ প্রকাশ হয়েছে। এছাড়া নিখোঁজ রয়েছেন দুজন। আহত হয়েছেন আরও অনেকে।

আবহাওয়া অফিস বলছে, প্রবল ঘূর্ণিঝড় ‘রেমাল’ দুর্বল হয়ে স্থল গভীর নিম্নচাপ হিসেবে বর্তমানে যশোর ও তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থান করছে। এটি আরও উত্তরপূর্ব দিকে অগ্রসর হয়ে ক্রমশ বৃষ্টিপাত ঝরিয়ে স্থল নিম্নচাপে পরিণত হবে।

প্রবল ঘূর্ণিঝড় রেমালের প্রভাবে জলোচ্ছ্বাসে উপকূলের বেশ কিছু এলাকা প্লাবিত হয়েছে। ভারি বর্ষণে কক্সবাজার ও পাবর্ত্য অঞ্চলে ভূমিধসের আশঙ্কা করা হচ্ছে। ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন জায়গায় এখনও বৃষ্টিপাত অব্যাহত।

বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় রেমালের অগ্রভাগ গতকাল রোববার দুপুর থেকে উপকূল স্পর্শ করতে শুরু করে। পরে রাত পৌনে ৯টার দিকে ঘণ্টায় ১২০ কিলোমিটার গতির বাতাসের শক্তি নিয়ে বাগেরহাটের মোংলার কাছ দিয়ে ভারতের পশ্চিমবঙ্গ ও পটুয়াখালীর খেপুপাড়া উপকূলে ঘূর্ণিঝড়ের কেন্দ্র আঘাত হানতে শুরু করে।

এ সময় গ্রামের পর গ্রাম পানির নিচে তলিয়ে যায়। জোয়ারের অথৈ পানিতে ডুবেছে বিস্তীর্ণ এলাকা। আগাম প্রস্তুতির কারণে প্রাণহানি কম হলেও জলোচ্ছ্বাসে ভেসে গেছে গবাদি পশু, মাছের ঘের ও ফসলি ক্ষেত। বাড়িঘর ও জনপদ ভাসছে নোনাপানিতে। ঝড়ের সময় উপড়ে গেছে গাছপালা। বিচ্ছিন্ন হয়েছে দেড় কোটি গ্রাহকের বিদ্যুৎ সংযোগ।