Joy Jugantor | online newspaper

ভবিষ্যৎ অস্তিত্বের জন্য পানি ব্যবস্থাপনা গুরুত্বপূর্ণ

ডেস্ক রির্পোট

প্রকাশিত: ২০:২৭, ২৫ জানুয়ারি ২০২৩

ভবিষ্যৎ অস্তিত্বের জন্য পানি ব্যবস্থাপনা গুরুত্বপূর্ণ

সংগৃহীত ছবি।

অষ্টম আন্তর্জাতিক পানি সম্মেলন সফল করার জন্য অভিনন্দন জানিয়ে সমাপনী অধিবেশনে সংসদ সদস্য এবং পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি সাবের হোসেন চৌধুরী বলেছেন, নদীকে জীবন্ত সত্তা হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়া একটি প্রশংসনীয় উদ্যোগ। নীতি ও কর্মের রূপান্তর করার জন্য আমাদের এখন শনাক্ত করতে হবে— কীভাবে নদী ও প্রাকৃতিক সম্পদের মূল্যায়ন করা যায়। 

বুধবার (২৫ জানুয়ারি) একশনএইড বাংলাদেশের  আয়োজনে ‘জীবন-জীবিকার জন্য পানি এবং নদী: যুবদের ভূমিকা’ প্রতিপাদ্য নিয়ে সিলেট জেলায় ২৩ থেকে ২৫ জানুয়ারি পর্যন্ত তিন দিনব্যাপী অষ্টম আন্তর্জাতিক পানি সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সিলেট জেলার ফেঞ্চুগঞ্জে  উপজেলায় কুশিয়ারা নদী ও এর পার্শ্ববর্তী এলাকা পরিদর্শনের মাধ্যমে সম্মেলনের সূচনা হয়।

এই সম্মেলন নীতিনির্ধারক, শিক্ষাবিদ, গবেষক এবং সরকার প্রতিনিধি এবং বিশেষজ্ঞদের একত্রিত করে পানি ও নদী সম্পর্কিত সমস্যার ক্ষেত্রে যুব সংহতকরণের ওপর আলোকপাত করে। সম্মেলনে জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক স্তরে পানি ও নদী শাসনে অবদান রাখতে পারে— এমন বেশ কিছু উল্লেখযোগ্য বিষয় উঠে আসে।

সাবের হোসেন চৌধুরী বলেন, ‘সরকার বিবিএস-এর সহায়তায় প্রাকৃতিক সম্পদের হিসাব করার উদ্যোগ নিয়েছে, যেখানে নদীও একটি অবিচ্ছেদ্য অংশ হবে। এটি দেশের জিডিপিতে প্রতিফলিত হবে এবং প্রাকৃতিক সম্পদের মূল্যায়নের ওপর বার্ষিক প্রকাশনা থাকবে।’

এ ছাড়া তিনি উল্লেখ করেন, পানি ও এর ব্যবস্থাপনার মধ্যে যোগসূত্রকে সর্বত্র জোর দিতে হবে। যেহেতু আমরা স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উত্তরণের পথে রয়েছি এবং দেশের আরও উন্নয়ন ঘটছে, তাই পানি শাসন একটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান হয়ে উঠবে। তিনি পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় অবস্থিত পানি জাদুঘরকে কীভাবে সমৃদ্ধ করা যায়, তার জন্য ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস প্রদান করেন এবং পানি ও নদী সম্পর্কে মানুষের জানার জন্য একটি  প্লাটফর্ম তৈরি করার বিষয়েও অভিমত প্রকাশ করেন।

সম্মেলনটি পাঁচটি বিষয়ভিত্তিক ক্ষেত্র— জলাশয় ইতিহাস, রূপবিদ্যা এবং পরিবর্তন, নদী একটি জীবন্ত সত্তা এবং নদীর ওপর নৃতাত্ত্বিক হস্তক্ষেপের প্রভাব, পানি ও নদী অধিকারে যুব সম্পৃক্ততা, আন্তঃদেশীয় নদী ও পানি রাজনীতি, উদ্ভাবন, পানি, বাস্তুতন্ত্র ও টেকসই জীবিকাকে আবর্ত করে অনুষ্ঠিত হয়।  

সম্মেলনের প্রথম দিনে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন এক ভিডিও-বার্তার মাধ্যমে অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন। তিনি বলেন, ‘মৎস্য আহরণ, কৃষিকাজ এবং শিল্প সবই পানির ওপর নির্ভর করে, যেখানে বাংলাদেশের ৮২০টিরও বেশি নদী রয়েছে। যা আমাদের ভূখণ্ডকে বিশ্বের বৃহত্তম জীবন্ত ব-দ্বীপে পরিণত করেছে। আমরা জলবায়ু পরিবর্তনের কঠোর বাস্তবতার মুখোমুখি হয়েছি, যার ফলে নদী ভাঙন, লবণাক্ততার অনুপ্রবেশ এবং অন্যান্য সম্পর্কিত ঘটনা বেড়েছে। এটি আমাদের জন্য একটি অস্তিত্বের প্রশ্ন, এজন্য  পানির বাস্তুতন্ত্র সম্পর্কিত সমস্যা মোকাবিলা প্রকৃতিভিত্তিক সমাধান খুঁজতে হবে। আমরা বিশ্বাস করি, আঞ্চলিক শান্তি ও সংহতির জন্য সঠিক পানি ব্যবস্থাপনা একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হতে পারে।’

জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের চেয়ারম্যান মনজুর আহমেদ চৌধুরী বলেন, ‘২০১৯ সালে বাংলাদেশের উচ্চ আদালত তুরাগ নদীকে জীবিত সত্তা হিসেবে স্বীকৃতি দেয়, যা একটি যুগান্তকারী রায়।’ তিনি আরও বলেন যে, জাতীয় নদী রক্ষা কমিশন বাংলাদেশের সমস্ত নদীকে একই নামের নদীগুলোকে চিহ্নিত করার জন্য একটি কাঠামো তৈরি করার উদ্যোগ নিয়েছে, যাতে নদীর সঠিক গণনা করা যায় এবং সুরক্ষিত রাখা যায়।’

একশনএইড বাংলাদেশ-এর কান্ট্রি ডিরেক্টর ফারাহ্ কবির বলেন, ‘নদীর প্রভাব আমাদের জীবন ও জীবিকার ওপর ব্যাপকভাবে রয়েছে। কিন্তু বর্তমানে নদীগুলো দখল ও দূষিত হচ্ছে। নদীগুলোর আয়তনও সংকুচিত হচ্ছে দিনদিন। নদীর অস্তিত্ব ও প্রাণ আছে। জোর করে এর গতিপথ পরিবর্তন করা প্রকৃতি এবং মানবজাতির জন্য হুমকিস্বরূপ। নদীগুলোকে প্রাকৃতিকভাবে প্রবাহিত হতে দিতে হবে।’

আয়োজনে আরও যুক্ত ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের অধ্যাপক ও সেন্টার ফর জেনোসাইড স্টডিজের পরিচালক ড. ইমতিয়াজ আহমেদ, ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের  সেন্টার ফর ক্লাইমেট চেইঞ্জ অ্যান্ড এনভায়রনমেন্ট রিসার্চ  এর ইমেরিটাস অধ্যাপক আইনুন নিশাত, পোস্টডেম ইনস্টিটিউট ফর ক্লাইমেট অ্যাকশন রিসার্চের বিজ্ঞানী মফিজুর রহমান, নেচার কনজারভেশন ম্যানেজমেন্টের নির্বাহী পরিচালক  এস এম মনজুরুল হান্নান খান, ওয়াটারএইড বাংলাদেশের কান্ট্রি ডিরেক্টর হাসিন জাহানসহ আরও অনেকে।