Joy Jugantor | online newspaper

নওগাঁয় ষষ্ঠ শ্রেণির বই এখনো পায়নি শিক্ষার্থীরা

নওগাঁ প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ২০:২৮, ২৩ জানুয়ারি ২০২৩

আপডেট: ২১:০৪, ২৩ জানুয়ারি ২০২৩

নওগাঁয় ষষ্ঠ শ্রেণির বই এখনো পায়নি শিক্ষার্থীরা

ছবি- জয়যুগান্তর।

নতুন বছরের ২৩ দিন পেরিয়ে গেলেও নওগাঁয় নতুন বইয়ের গন্ধ পাওয়া থেকে বঞ্চিত হচ্ছে ষষ্ঠ শ্রেণির শিক্ষার্থীরা। এছাড়া অন্যান্য শ্রেণির বইও আংশিক বিতরণ করা হয়েছে। 

পাঠ্যবই না পাওয়ায় শিক্ষার্থীরা স্কুলে এসে খেলাধুলা করে সময় কাটিয়ে ফিরে যাচ্ছে। আবার কিছু কিছু স্কুলে শিক্ষকদের ব্যতিক্রম উদ্যোগে ইন্টারনেট থেকে বইয়ের কনটেন্ট সংগ্রহ করে মাল্টিমিডিয়ায় ক্লাস নেওয়া হচ্ছে। 

বই না পেলেও শিক্ষার্থীরা মাল্টিমিডিয়ায় ক্লাসের পড়াগুলো খাতায় লিপিবদ্ধ করে রাখছে। পাশাপাশি সাধারণ জ্ঞান দেওয়া হচ্ছে।

জেলা প্রাথমিক ও মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস সূত্রে জানাযায়, জেলায় ৬৪৪ টি মাধ্যমিক স্কুল ও মাদ্রাসা রয়েছে। যেখানে শিক্ষার্থীর সংখ্যা ২ লাখ ৭৬ হাজার ২৫৫ জন। বই এর চাহিদা রয়েছে ৩৬ লাখ। এরমধ্যে ১৬ লাখ ৪ হাজার ৫০৩টি বই বিতরণ করা হয়েছে। তবে ষষ্ঠ শ্রেণির শিক্ষার্থদের এখনো বই দেওয়া হয়নি।

জানুয়ারি মাসের ২৩ দিন পেরিয়ে গেছে। বই না পাওয়ায় অভিভাবকরাও তাদের সন্তানদের পড়াশুনা নিয়ে উদ্বিগ্ন। কবে নাগাদ বই পাওয়া যাবে তা বলতে পারছেনা সংশ্লিষ্ট কেউ। বই না পাওয়ায় কোন কোন স্কুলে শিক্ষার্থীদের ব্যতিক্রমী উদ্যোগে মাল্টিমিডিয়ায় ক্লাস নেওয়া হচ্ছে। পড়াশুনার প্রতি আগ্রহ বাড়াতে এবং শিক্ষার মান ধরে রাখতে দ্রুত বই সরবরাহ করা হোক এমন দাবী সবার। 

নওগাঁ জিলা স্কুলের এক শিক্ষার্থীর অভিভাবক আফজাল হোসেন বলেন, তার ছেলে ষষ্ঠ শ্রেণিতে পড়ে। এখনো কোন বই দেওয়া হয়নি। স্কুলে আসে আর যায়। খেলাধুলা করে সময় কাটায়। পড়তে বসতে বলা হলেও পড়ছে না। তবে শিক্ষকরা ইংরেজি ও বাংলা ব্যাকারণ ক্লাস করাচ্ছেন। 

সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী আজুরা ও তোহা জানায়, নতুন বইয়ের গন্ধ এখনো পাইনি। কেমন বই সেটাও দেখা হয়নি। খারাপ লাগছে। স্কুলে গিয়ে খেলাধুলা করে বাসায় চলে যায়।

জনকল্যাণ মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মহাদেব কুমার সাহা বলেন, ষষ্ঠ শ্রেণির কোন বই পাওয়া যায়নি। অন্যান্য শ্রেণির ৫০ শতাংশ বই পাওয়া গেছে। বই না থাকায় ইন্টারনেট থেকে বইয়ের কনটেন্ট সংগ্রহ করে শিক্ষার্থীদের পড়ানো হচ্ছে। এছাড়া সাধারণ জ্ঞানের ক্লাস নেওয়া হচ্ছে। কারণ স্কুলে কোন ক্লাস না করানো হলে পরের দিন শিক্ষার্থীরা না আসতে পারে। এজন্য শিক্ষার্থীদের আগ্রহ বাড়াতে মাল্টিমিডিয়া ক্লাস নেওয়া হচ্ছে।

আপাতত কোন শ্রেণির ক্লাস হচ্ছে না জানিয়ে নওগাঁ সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষক সাইদুর রহমান বলেন, নাচ-গান সাংস্কৃতিক ও মিলাদ এর মধ্য দিয়ে সময় পার হচ্ছে। তবে শিগগিরই বই পাওয়া যাবে।

নওগাঁ জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার লুৎফর রহমান বলেন, জেলার কয়েকটি উপজেলায় বই চলে গেছে। বই স্বল্পতায় কয়েকটি উপজেলায় এখনো যায়নি। কিছু সিলেবাসের পরিবর্তন হয়েছে এবং নতুন কারিকুলাম আসছে। এছাড়া কাগজের দাম বেড়ে যাওয়ায় কিছু ছাপাখানার মালিক বই ছাপাতে দেরি করেছে। তবে চলতি (জানুয়ারি) মাসের মধ্যে সকল বই পাওয়া যাবে বলে জানান এ কর্মকর্তা।