Joy Jugantor | online newspaper

বগুড়ার শাজাহানপুর উপজেলা

উপজেলা চেয়ারম্যানের দিকে এমপি বাবলুর ‘পিস্তল তাক’

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ১৪:৩২, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২২

আপডেট: ২২:০২, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২২

উপজেলা চেয়ারম্যানের দিকে এমপি বাবলুর ‘পিস্তল তাক’

শাজাহানপুর উপজেলা পরিষদের বারান্দায় এমপি রেজাউল করিম বাবলু।

প্রকল্পের জন্য দেয়া টাকা ফেরত চাওয়া নিয়ে বগুড়া-৭ আসনের সংসদ সদস্য (এমপি) রেজাউল করিম বাবলুর সঙ্গে উপজেলা যুবলীগ নেতার শুরু হয় দ্বন্দ্ব। সেই দ্বন্দ্ব থামাতে গেলে পাল্টা উপজেলা চেয়ারম্যানের দিকে নিজের পিস্তল তাক করেন এমপি। 

তবে এমপির পক্ষ দাবি করা হয়েছে আত্মরক্ষায় পিস্তল বের করেছেন তিনি।

এমন ঘটনাটি ঘটেছে বুধবার সকালে সাড়ে ১০টার দিকে বগুড়ার শাজাহানপুর উপজেলা পরিষদের বারান্দায়। এদিন উপজেলা আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভা চলছিল। এ সভায় এসেই এমন কাণ্ডের অভিযোগ উঠেছে এমপি রেজাউল করিম বাবলু গোলবাগীর বিরুদ্ধে। ঘটনার পরপরই এমপি উপজেলা পরিষদ ত্যাগ করেন।

এমপির সঙ্গে দ্বন্দ্বে জড়িয়ে পড়া যুবলীগ নেতার নাম আলমগীর বাদশা। তিনি শাজাহানপুর উপজেলা যুবলীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক।

আলমগীর বাদশা বলেন, ২০১৯ সালে এমপির নামে মসজিদ, রাস্তাসহ বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পের বরাদ্দ আসে। ওই সময় অনেকের কাছে থেকে বরাদ্দ দেয়ার নামে টাকা নিয়েছিলেন এমপি। আমার কাছে থেকেও ৩ লাখ ৯৫ হাজার টাকা নেন। আমিই তাকে দিয়েছিলাম। যাতে উন্নয়ন কাজগুলো হয়। কিন্তু সেই বরাদ্দ আজও দিতে পারেননি এমপি রেজাউল করিম। আমার দেয়া টাকাও ফেরত দেননি। 

বাদশা অভিযোগ করেন, ‘অতীতেও টাকা ফেরতের বিষয়ে তার সঙ্গে কথা হয়েছে। তিনি দিবেন বলে এড়িয়ে যেতেন। আজ সামনা সামনি দেখা হতে তাকে বললাম, আপনি যে টাকাটা নিলেন, ফেরত দিবেন না?’ 

‘এ কথা বলার পরেই তিনি আমার ওপর উত্তেজিত হয়ে ওঠেন। বলেন কিসের টাকা, কোনো টাকা নেই।’ 

যুবলীগ নেতার দাবি, ‘এ সময় আমাকে ধাক্কা মারতে থাকেন এমপি। ফারুক নামে তার এক সঙ্গী লাঠি দিয়ে আঘাত করে আমাকে। আমাকে বাঁচাতে গেলে আরেক জনের মাথায় বারি মারে ফারুক। ওই সময় উপজেলা আইনশৃঙ্খলা মিটিং চলছিল। হট্টগোল শুনে উপজেলা চেয়ারম্যান সোহরাব হোসেন ছান্নু  বের হয়ে সবাইকে শান্ত হতে বলেন। কিন্তু কোনো কথা না বলে এমপি পিস্তল বের করে তার দিকে তাক করে।’

প্রতক্ষদর্শীরা জানান, সকাল দশটার দিকে এমপি আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভায় অংশ নিতে আসেন। এ সময় আলমগীর বাদশা তার কাছে গিয়ে প্রকল্পের জন্য দেয়া টাকার প্রসঙ্গ তোলেন। এ নিয়ে দু পক্ষেই উত্তেজনামূলক কথা চলছিল। এক পর্যায়ে হাতাহাতি, ধাক্কাধাক্কি শুরু হয়। এ সময় বাদশাকে লাঠি দিয়ে আঘাত করে ফারুক। সেটি ঠেকাতে গিয়ে শহিদুল নামে একজনের মাথায় আঘাত পান। হামলায় এমপির সহকারীর মাথাতেও লাঠির আঘাত লাগে।

ঘটনাস্থলে থাকা উপজেলা শ্রমিক লীগের এক নেতা শহিদুল ইসলাম জানান, বাদশার পাশে দাঁড়ালে এমপির সাথে থাকা ফারুক পিছন থেকে এসে লাঠি দিয়ে আমার মাথায় বারি দেয়। এখনও মাথায় ফুলে আছে। ওই ফারুক এমপির ছত্রছায়ায় মাদক ব্যবসা করে, গরু চুরি করে। পরে উপজেলা চেয়ারম্যান এগিয়ে আসলে এমপি পিস্তল বের করে দেখায়।

এ বিষয়ে উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সোহরাব হোসেন ছান্নু বলেন, আমি আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভা হচ্ছিল। বাইরে হট্টগোল শুনে বের হই। শুনতে পাই চার বছর আগের প্রকল্পের বরাদ্দের টাকা নিয়ে কথাকাটাকাটি হচ্ছে। আমি তাকে বললাম এমপি সাহেব আপনি বসে সমাধান করা ভালো। আপনি সিনিয়র মানুষ, এভাবে যুবলীগ সেক্রেটারির সঙ্গে বাইরে কথা বলার দরকার নেই।’ 

‘তিনি কী বুঝলেন, হঠাৎ করে পিস্তল বের করে আমার পায়ের দিকে তাক করে। এ সময় সেখানে পুলিশ, উপজেলা সাংবাদিক উপস্থিত ছিলেন।’

উপজেলা চেয়ারম্যান আরও বলেন, এমপি সাহেব এর আগে কখনও উপজেলা আইনশৃঙ্খলা কমিটির কোনো সভায় আসেননি। আজ কি মনে করে এসেছেন, জানি না। পরে অবস্থা বেগতিক দেখে কিছুক্ষণ পর চলে যান এমপি। আর তার বিরুদ্ধে অনেক প্রকল্প নিয়ে নয়ছয় করার ঘটনা আছে। এসবের সঠিকভাবে তদন্ত করা দরকার।

তবে এসব ঘটনার বিষয়ে সংসদ সদস্য রেজাউল করিম বাবলুর কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি। তার ব্যবহৃত মোবাইল নম্বরটি বন্ধ রয়েছে।

তার ব্যক্তিগত সহকারী (পিএ) রেজাউল করিম বলেন, আইনশৃঙ্খলা কমিটির মিটিংয়ে অংশ নিতে উপজেলা পরিষদে যাওয়া হয়। এ সময় সেখানে আলমগীর বাদশা এমপি মহোদয়কে দেখেই অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করেন। তার সাথে আরও কয়েকজন আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মী ছিল। এক পর্যায়ে তারা এমপির ওপর হামলা করে। আমি সামনে থাকায় আমার মাথায় আঘাত লাগে।

উপজেলা চেয়ারম্যানের দিকে পিস্তল তাক করার বিষয়ে জানতে চাওয়া হয় তার কাছে। পিএ বলেন, চেয়ারম্যানও হামলা করতে এসেছিলেন। এমপি তখন নিজের আত্মরক্ষায় পিস্তল বের করেন। পিস্তল তো নেয়া হয়েছে আত্মরক্ষার জন্য।

হট্টগোলের বিষয়টি নিশ্চিত করেন শাজাহানপুর থানার ওসি আব্দুল্লাহ আল মামুন। তিনি বলেন, আজ উপজেলায় আইন শৃঙ্খলা কমিটির সভা চলছে। এ সময় এমপি মহোদয়ের সঙ্গে বাইরে ঝামেলা হয়েছে। 

পিস্তলের নিবন্ধনের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এটি নিশ্চিত হয়ে বলতে হবে। আমি খোঁজ নিচ্ছি।

তবে বগুড়া জেলা প্রশাসনের জেএম শাখা থেকে এমপি বাবলুর নামে একটি পিস্তল নিবন্ধনের বিষয় নিশ্চিত করেছে।  

এসব ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে দুপুরে শাজাহানপুর উপজেলা আওয়ামী লীগ বিক্ষোভ মিছিল করে। উপজেলা পরিষদ থেকে বের হয়ে  মিছিলটি মাঝিড়া বটতলা শেষ হয়। সেখানে সম্পাদক তালেবুল ইসলাম তালেবের নেতৃত্বে সমাবেশ করে উপজেলা আওয়ামী লীগ।