Joy Jugantor | online newspaper

তালাক গোপন করে স্ত্রীর সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক করায় যাবজ্জীবন

ডেস্ক রিপোর্ট

প্রকাশিত: ২১:৩৭, ২৩ নভেম্বর ২০২১

তালাক গোপন করে স্ত্রীর সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক করায় যাবজ্জীবন

তালাকের বিষয় গোপন করে আড়াই বছর ঘর-সংসার করা ও শারীরিক সম্পর্ক করার অভিযোগে স্ত্রীর দায়ের করা ধর্ষণ মামলায় শেরপুরে একজনের যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ডের রায় দিয়েছেন আদালত।

মঙ্গলবার দুপুরে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মো. আখতারুজ্জামান ২৩ নভেম্বর এ রায় ঘোষণা করেন। একইসঙ্গে ২০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে ৬ মাসের কারাদণ্ডাদেশ দেওয়া হয়েছে।

মামলার শুরু থেকেই সাজাপ্রাপ্ত শ্রীবরদী উপজেলার গড়জরিপা গ্রামের বাসিন্দা শাহ আলী (৪৭) পলাতক রয়েছেন।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের পিপি মো. গোলাম কিবরিয়া বুলু রায়ের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, সদর উপজেলার বয়রা গ্রামের বাসিন্দা ভিকটিম নিজেই বাদী হয়ে ২০১৫ সালের ২৫ জানুয়ারি সদর থানায় মামলাটি দায়ের করেছিলেন। ঘটনাটি ২০১২ সালের ১৩ মে থেকে ২০১৪ সালের ১৪ নভেম্বরের মধ্যে ঘটেছে। ওই সময় স্ত্রীকে তালাক দেওয়ার বিষয়টি গোপন রেখে স্ত্রী হিসেবে ভিকটিম বাদীর সঙ্গে সংসার এবং শারীরিকভাবে মেলামেশা করেন সাজাপ্রাপ্ত শাহ আলী।

মামলার নথির উদ্ধৃতি দিয়ে পিপি জানান, স্বামীর বিরুদ্ধে স্ত্রীর দায়ের করা একটি যৌতুক মামলায় শাহ আলী ২০১৪ সালের ১২ ফেব্রুয়ারি আদালতে স্বেচ্ছায় আত্মসমর্পণ করে ভিকটিমকে ২০১২ সালের ১৩ মে তালাক দিয়েছেন বলে উল্লেখ করেন। কিন্তু তখনো ভিকটিমের সঙ্গে স্ত্রী হিসেবে ঘরসংসার করছিলেন শাহ আলী।

ঘটনাটি জানার পর ২০১৫ সালের ২৫ জানুয়ারি শাহ আলী এবং তার বাবা-মা ও আরেকজনসহ ৪ জনকে আসামি করে ভিকটিম বাদী হয়ে ধর্ষণের অভিযোগে থানায় আরেকটি মামলা দায়ের করেন। ওই মামলায় সদর থানার তৎকালীন এসআই আবুল কালাম আজাদ শাহ আলীসহ ৪ জনের বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশিট দাখিল করলেও আদালত ৩ জনকে বাদ দিয়ে শাহ আলীর বিরুদ্ধে চার্জ গঠন করেন।