Joy Jugantor | online newspaper

হাসপাতালের সামনে লাশ ফেলে পালালেন সহযাত্রীরা

ডেস্ক রিপোর্ট

প্রকাশিত: ২০:১২, ১১ অক্টোবর ২০২১

আপডেট: ২০:১৩, ১১ অক্টোবর ২০২১

হাসপাতালের সামনে লাশ ফেলে পালালেন সহযাত্রীরা

শরীয়তপুর সদর হাসপাতালের গেইটের সামনে এক ব্যক্তির লাশ ফেলে রেখে পালিয়েছেন সহযাত্রীরা। সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার সহযোগিতায় দুই ঘণ্টা পর লাশটি উদ্ধার করে হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়। পরে লাশটির পরিচয় মেলে।

তার নাম নুরুল ইসলাম কুট্টি (৭০)। বরিশাল জেলার মুলাদী এলাকার বাসিন্দা তিনি। তিন মেয়ে, দুই ছেলে তার।

সোমবার দুপুরে সদর হাসপাতালের মর্গে লাশটির ময়নাতদন্ত হয়। এর আগে রোববার (১০ অক্টোবর) দুপুরে কুট্টির লাশ ফেলে রেখে পালান সহযাত্রীরা।

সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও)  মনদীপ ঘরাই বলেন, রোববার দুপুরে একটা অনুষ্ঠানে ছিলাম। ফেসবুক মেসেঞ্জারে জানতে পারলাম দুই ঘণ্টা ধরে একটা লাশ পড়ে আছে হাসপাতালের গেটে। সঙ্গে সঙ্গে ছুটে যাই। পালং মডেল থানার ওসি আকতার হোসেন, এসআই রফিক, সাংবাদিকসহ সবাই মিলে সম্মিলিত প্রচেষ্টায় বের করি মৃত ব্যক্তির পরিচয়।

তিনি বলেন, বরিশাল থেকে ঢাকায় ছেলের বাসায় যাচ্ছিলেন তিনি। পথে হিট স্ট্রোক করলে সহযাত্রীরা তাকে হাসপাতালের গেটে রেখে ভয়ে পালিয়ে যায়। ততক্ষণে তার দেহে আর প্রাণ ছিল না। পরে তার সন্তানদের খবর দেওয়া হয়। আজ সোমবার তার দুই ছেলে এসেছে। 

তিনি বলেন, শেষ যাত্রায় একজন মানুষকে পরিচয়হীন হতে দিলাম না। সে বেওয়ারিশভাবে দাফন হবে এটা মেনে নিতে পারছিলাম না। আমরা সফল হতে পেরেছি বলা যায়।

মৃত নুরুল ইসলাম কুট্টির ছোট ছেলে ওমর ফারুক বলেন, আমার বাবা আমাদের সঙ্গে ঢাকা থাকেন। ১৭ দিন আগে (আমাদের গ্রামের বাড়ি) বরিশাল মুলাদী আমার ফুপুর বাড়িতে বেড়াতে আসেন বাবা। রোববার বাসে করে ঢাকা যাচ্ছিলেন বাবা। তখন দুর্ঘটনাটি ঘটে। বাবার লাশ হাসপাতালের সামনে রেখে সহযাত্রীরা চলে যান। আমরা ফেসবুকের মাধ্যমে বিষয়টি জানতে পারি। তাই বাবার লাশ নিতে এসেছি।

পালং মডেল থানার ওসি আক্তার হোসেন বলেন, মৃত ব্যক্তির পরিচয় পাওয়া গেছে। লাশটির ময়নাতদন্ত শেষে তার স্বজনদের হাতে তুলে দেওয়া হবে।