Joy Jugantor | online newspaper

গরমে গাছেই ফেটে যাচ্ছে লিচু, শঙ্কায় দিন কাটছে চাষীর

পাবনা প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ১৭:০৪, ২০ মে ২০২৩

গরমে গাছেই ফেটে যাচ্ছে লিচু, শঙ্কায় দিন কাটছে চাষীর

পাবনার ঈশ্বরদীতে বোম্বাই লিচু পাকতে ১৫ দিন লাগবে। এরই মধ্যে গাছে ফেটে যাচ্ছে লিচু।

বোম্বাই লিচুর রাজধানীখ্যাত ঈশ্বরদীতে দেশি (আঁটি) লিচু সবে পাকতে শুরু করেছে। কদিন বাদেই বাগানগুলোতে বোম্বাই লিচু লাল টকটকে রঙিন হওয়ার কথা। কিন্তু বাদ সেজেছে প্রকৃতি। চলতি মৌসুমে ঈশ্বরদীতে বৃষ্টির ছিটেফোঁটা নেই। প্রচণ্ড গরমে গাছেই ফেটে ঝরে পড়ছে লিচু। এতে ফলন বিপর্যয়ের শঙ্কায় দিন কাটছে লিচু চাষীদের।

সরেজমিনে লিচু বাগানগুলো ঘুরে দেখা গেছে, টানা দাবদাহে লিচু পরিপক্ক হয়ে ওঠার আগেই লালচে রং ধারণ করেছে। গাছেই ফেটে ঝরে পড়ছে লিচু। প্রতিটি তিন টাকা দামের কৃষকের স্বপ্নের লিচু মাটিতে পড়ে লুটোপুটি খাচ্ছে। দেশি মোজাফ্ফরী জাতের লিচু রোদের তীব্রতায় পুড়ে কালচে হয়ে যাচ্ছে। দিন সাতেক আগে দেশি লিচু বাজারে উঠতে শুরু করেছে। অপরিপক্কতার কারণে লিচু আকারে যেমন ছোট, স্বাদও তেমন নেই।

চাষীরা জানান, এমনিতেই গত বছরের তুলনায় এবার অর্ধেকেরও কম বোম্বাই লিচু গাছে মুকুল এসছে। বৈরী পরিস্থিতি চলতে থাকলে লিচু চাষে এবার চরম বিপর্যয় ঘটবে। বেশিরভাগ লিচু চাষীর গোটা বছরের আয়ের এক মাত্র উৎস এটি।

কৃষি অফিসের তথ্য অনুযায়ী, ঈশ্বরদীতে তিন হাজার ১০০ হেক্টর জমিতে লিচুর বাগান রয়েছে। উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ঠিক করা হয়েছে ৩১ হাজার মেট্রিক টন। মৌসুমে প্রতি বছরই ঈশ্বরদীতে কম বেশি প্রায় ৫০০ কোটি টাকার লিচু উৎপাদিত হয়। কিন্তু প্রকৃতির বিরূপ আচরণ ও প্রচণ্ড দাবদাহের কবলে পড়ে লিচুর উৎপাদন নিয়ে শঙ্কাগ্রস্ত কৃষি বিভাগ ও লিচু চাষীরা।

ঈশ্বরদীর জয়নগর ও মানিকনগর গ্রামে সবচেয়ে বেশি লিচু উৎপাদিত হয় বলে জানিয়েছে কৃষি অফিস।

আবহাওয়া অফিস জানায়, মাসাধিক সময় ধরে প্রতি দিনই বেলা ১১টা বাজতে না বাজতেই তাপমাত্রার কাঁটা ৩৬ ডিগ্রি অতিক্রম করে। দুপুরের পর ৩৮-৪০ ডিগ্রির মধ্যে ওঠানামা করছে। এর আগে তাপমাত্রা ৪২-৪৩ ডিগ্রিতেও উঠেছিল।

জয়নগর গ্রামের লিচুচাষী শাহমত মণ্ডল বলেন, বোম্বাই লিচু পাকতে আরও ১৫ দিন সময় লাগবে। আমার ৬০টি লিচুগাছ রয়েছে। এর মধ্যে ২০টি গাছের লিচু ফেটে যেতে দেখা গেছে। ২০১৬ সালেও লিচু ফেটেছে, তবে এতো বেশি হয়নি। এবার এতো কেন ফাটছে তা বুঝতে পারছি না।

লিচু ব্যবসায়ী আব্দুল রউফ বলেন, লিচুর ফলন এবার কম। তার ওপর ফেটে ঝরে পড়ছে। লিচুর বাগান কেনার পর সার ও কীটনাশকসহ পরিচর্যায় অনেক টাকা ব্যয় করেছি। কিন্তু ফাটা যেভাবে শুরু হয়েছে, তাতে পাকতে পাকতে পুরো বাগানের লিচুই ফেটে ঝরে যেতে পারে।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মিতা সরকার বলেন, তাপমাত্রা ৩৫ ডিগ্রির ওপরে থাকলে তা লিচুর জন্য খুবই ক্ষতিকর। এবার মুকুল থেকে লিচুর গুটি যখন ধরতে শুরু করে, তখন থেকেই প্রায় এক মাস যাবৎ ঈশ্বরদীর তাপমাত্রা ৩৮ ও ৪৩ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে ওঠানামা করেছে। এতেই ব্যাপক ক্ষতি হচ্ছে।