Joy Jugantor | online newspaper

গ্রীষ্মের মুখোরোচক ফল বিলিম্বি

মামুনুর রশিদ মামুন

প্রকাশিত: ২১:৪৪, ৩০ এপ্রিল ২০২১

আপডেট: ২১:৫১, ৩০ এপ্রিল ২০২১

গ্রীষ্মের মুখোরোচক ফল বিলিম্বি

থোকায় থোকায় ঝুলে আছে টক স্বাদের বিলিম্বি ফল। ছবি-মামুনুর রশিদ মামুন

অনেকে ফলটিকে কামরাঙ্গার সাথে মিলিয়ে ফেলেন। স্বাদও অনেকটা কামরাঙ্গার মত। রসালো ও মুখোরোচক এ সবুজ ফলটি কামরাঙ্গা গোত্রের বলে জানা যায়। শুধু স্বাদ নয় প্রজাতি, বিন্যাস, পরিবার, গুণ সবকিছুতেই কামরাঙ্গার নিকটাত্মীয় এই ফলটি। টক স্বাদের ফলটি দেখতে ঠিক যেন পটলের মতো। নাম বিলিম্বি। বিলিম্বি অক্সিডেসি গোত্রের অর্ন্তগত উদ্ভিদ। এটি আকারে তিন থেকে ছয় সেন্টিমিটার পর্যন্ত হয়ে থাকে। ফলটি টক হলেও তেঁতুলের মত এতটা কড়া না। এর বৈজ্ঞানিক নাম Averrhoa bilimbi বিলুম্বু বা বেলেম্বু নামেও অনেকের কাছে পরিচিত।

বিলিম্বি মূলত উষ্ণ আবহাওয়ার উদ্ভিদ। ঔষধি ফল হিসেবে বিলিম্বির অনেক গুণ রয়েছে।

এ গাছ সাধারণত পাঁচ থেকে দশ মিটার পর্যন্ত লম্বা হয়। নিয়মিত পাতা ছেটে ও ডালপলা পানি দিয়ে ভিজিয়ে রাখলে প্রায় সারা বছরই ফল পাওয়া যায়। তবে সবচেয়ে বেশি ফল ধরে চৈত্র মাসে।

বগুড়ায় বিলিম্বির দেখা মিলে শহরের বনানী হার্টিকালচার সেন্টারে। সেখানে অনেক প্রজাতি গাছের মধ্যে বিলিম্বিও রয়েছে। এ গাছের গোড়া থেকে শুরু করে মাথা পর্যন্ত প্রতিটি ডালপালায় থোকায় থোকায় ঝুলে আছে টক স্বাদের ফলগুলো। কিছু ফল কাঁচা আবার কিছু পাকা। দেখলেই জিবে পানি আসে। তবে এ ফলটি কাঁচাই খাওয়া য়ায়। রসালো ও মুখরোচক বলে এ ফলটি সবার কাছে প্রিয়।

অনেক মানুষেরই ধারণা রসালো ও মুখোরোচক এ সবুজ ফলটি পৃথিবীতে আসতে বিলম্ব করায় এর নাম বিলম্বি হয়েছে। নামে কি আসে যায় অপ্রচলিত এ ফলের স্বাদ ও পুষ্টিগুণ নিয়ে তেমন একটা মতপার্থক্য দেখা যায় না। শীতকালে গাছের পাতা ঝরে গিয়ে বসন্তের আগমণে আবার নতুন সবুজ পাতা গজায়। গাছের ডাল ও গা ঘিরে থোকায় থোকায় দেখা মিলছে ফলের। হালকা সবুজ রঙের ফলটি চৈত্রের প্রচণ্ড গরমে পিপাসা নিবারক হিসাবেও ভালো কাজ করে।

বিলিম্বি ফল কাঁচা খাওয়া যায়। টক জাতীয় ফলের মতোই এটি মরিচ-লবণ দিয়ে খেতে ভালো লাগে। এছাড়া ছোট মাছ ও ডালের সাথে বিলিম্বির টক খেতেও ভালো লাগে। অনেকে আবার টক স্বাদের এই ফলটি আচার বা চাটনিও তৈরি করেন।

হর্টিকালচারের কৃষি কর্মকর্তারা জানান, পুষ্টিগুণে সমৃদ্ধ এই ফলটিতে আমিষ, শ্বেতসার, চর্বি, খনিজ, ভিটামিন, ক্যারোটিন, ক্যালোরি রয়েছে। ভিটামিন সি, পটাশিয়াম, ক্যালসিয়াম রয়েছে। বিলিম্বি রক্তচাপ ও ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে ভূমিকা রাখে। এছাড়া জন্ডিস ও চর্মরোগের ঔষধ হিসাবে এটা ব্যবহার করা হয়।

বনানী হার্টিকালচার সেন্টারে কৃষক সাইফুল বলেন, ‘সারা বছর এ ফল কম বেশি হয়। কিন্তু গরমের সময় গাছে ফল বেশি হয়। বিলিম্বি দিয়ে টক ডাল, আচার, চাটনি তৈরি করা যায়। এছাড়া হাই প্রেসারের রোগীকে চার থেকে পাঁচটা এ ফল খাওয়ায় দিলে দ্রুত কাজ করে।’